Tuesday , July 23 2024
Breaking News
Home / National / সেই দুঃস্বপ্ন পূরণ হয়নি, বিশ্বাসঘাতকতা ভুলে যায়নি: প্রধানমন্ত্রী

সেই দুঃস্বপ্ন পূরণ হয়নি, বিশ্বাসঘাতকতা ভুলে যায়নি: প্রধানমন্ত্রী

৩ মেয়াদে বাংলাদেশের সরকারের দায়িত্ব পালন করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এক টানা দীর্ঘ সময়ে দেশের সরকারের দায়িত্বে থাকায় দেশের ব্যপক উন্নয়ন হয়েছে। এমনকি দেশে অনেক উন্নয়নমূলক কাজ চলমান রয়েছে। সম্প্রতি বাংলাদেশ পরমাণু যুগে প্রবেশ করেছে। আজ ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটের চুল্লির উদ্বোধন করেছেন শেখ হাসিনা। এরই লক্ষ্যে বেশ কিছু কথা জানালেন প্রধানমন্ত্রী নিজেই।

পরমাণু যুগে প্রবেশ করে পুরো বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। দেশের একের পর এক অগ্রগতি দেখে বিশ্ব এখন আমাদের প্রশংসা করছে। রোববার (১০ অক্টোবর) বেলা ১১টা ৪৩ মিনিটে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটের চুল্লির উদ্বোধন শেষে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০০১ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতার মসনদে বসে একের পর এক দুর্নীতির ফ/ন্দি করতে থাকে। এর মধ্যে বিদ্যুৎখাত ছিল অন্যতম। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে বিদ্যুৎ ৪ হাজার ৩০০ মেগাওয়াটে উন্নীত করলেও বিএনপি ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে ৩ হাজার মেগাওয়াটে নিয়ে আসে। যেটি বিদ্যুৎখাতের জন্য অশনিসংকেত ছিল। তিনি বলেন, এক ফোটা বিদ্যুৎও তারা বাড়ায়নি। আজ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আছে। তাই দেশের উন্নয়ন অগ্রগতি অব্যাহত রয়েছে। বিএনপি দুর্নীতিতে বিশ্বাসী আর আমরা উন্নয়নে বিশ্বাসী। পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ তার বড় প্রমাণ।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য দিনরাত পরিশ্রম করছি। ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন জাতির পিতা। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে হ/ত্যা করে সেই স্বপ্ন মুছে দিতে চেয়েছিল একটি গোষ্ঠী। কিন্তু তাদের সেই দুঃস্বপ্ন পূরণ হয়নি। তারা ভেবেছিল তাকে হ/ত্যা করলেই আমরা সফল হতে পারব। তাদের সেই বিশ্বাসঘাতকতা বাঙালি ভুলে যায়নি। তিনি বলেন, দেশে শতভাগ বিদ্যুতায়ন হয়েছে। গ্রামগঞ্জের বাড়িতে বাড়িতে এখন বিদ্যুৎ। পারমাণবিকের কাজ সম্পন্ন হয়ে গেলে গ্রামগঞ্জ অর্থনৈতিকভাবে আরও সমৃদ্ধ হবে। এ লক্ষ্যে দক্ষিণাঞ্চল আরও একটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র গড়ে তোলার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। জাতির পিতার স্বপ্ন ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ। এই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আর কোনো শকুনের থাবা পড়তে দেওয়া হবে না বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

ইতিমধ্যে উন্নয়নের অগ্রগতিতে বাংলাদেশে বিশ্ব দরবারে অট্জন করেছে ব্যপক সফলতা এবং সম্মাননা। এমনকি উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিশ্ব দরবারে অর্জন করেছে বিশেষ স্বীকৃতি। অবশ্যে বাংলাদেশের বর্তমান সরকার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আপ্রান ভাবে কাজ করছেন।

About

Check Also

জাহ্নবী কাপুরের ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও)

মন্দিরের সিঁড়ির একপাশে অসংখ্য ভাঙা নারিকেল। তার পাশে থেকে হামাগুড়ি দিয়ে উপরে উঠছেন বলিউড অভিনেত্রী …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *