Tuesday , July 23 2024
Breaking News
Home / Countrywide / দেশের সকল সিটি ও পৌর সড়কের জন্য নয়া পদক্ষেপ গ্রহন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের

দেশের সকল সিটি ও পৌর সড়কের জন্য নয়া পদক্ষেপ গ্রহন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের

বর্তমান সময়ে দেশে অনেক উন্নয়নমূলক কাজ চলমান রয়েছে। দেশের রাস্তা-ঘাটের ব্যপক উন্নয়ন হয়েছে। ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন সড়কের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এমনকি এখনও অনেক জেলাগুলোতে সড়কের কাজ চলচমান রয়েছে। তবে এই সড়ক সংস্করনের কাজ সুষ্ঠ ভাবে পরিচালনার জন্য নয় পদক্ষেপ গ্রহন করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। তারা জানিয়েছে দেশের সকল সিটি ও পৌর সড়কের জন্য আইডি নম্বর প্রদান করা হবে।

দেশের গ্রামীণ সড়কগুলোর জন্য আলাদা আইডি নম্বর থাকলেও সিটি করপোরেশন ও পৌরসভাগুলোতে তা নেই। এ জন্য সড়কের উন্নয়ন কাজ করতে গিয়ে টেন্ডার প্রক্রিয়ায় নানা জটিলতায় পড়তে হয় সংশ্লিষ্টদের। অনেক সময় একই রাস্তা ভিন্ন ভিন্ন নামে টেন্ডার করে বিল উঠিয়ে নেওয়ার ঘটনা ঘটে। আবার একই রাস্তা ভিন্ন ভিন্ন সংস্থাও দাবি করে। বিষয়টি ভাবিয়ে তুলেছে দুই সিটি করপোরেশনসহ সংশ্লিষ্টদের। এ জন্য সড়কগুলোর আইডি নম্বর দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বলছে, পর্যায়ক্রমে সব সিটি করপোরেশন ও পৌরসভার প্রত্যেকটি রাস্তার কোড নম্বর দেওয়া হবে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর সূত্র জানায়, ১৯৯০ সালের প্রথম দিকে গ্রামীণ রাস্তাগুলোর নামকরণের জন্য দুই ধরনের ডাটাবেজ করা হয়। আর তা হচ্ছে—রোড স্ট্রাকচার ও ব্রিজ এবং জিআইএস ডাটাবেজ। এই গ্রামীণ রাস্তাগুলোকে উপজেলা রোড, ইউনিয়ন রোড, ভিলেজ টাইপ ‘এ’ ও ভিলেজ টাইপ ‘বি’ ক্যাটাগরিতে বিভক্ত করা হয়। বর্তমানে ডাটাবেজে রাস্তার সব তথ্য রয়েছে। ডাটাবেজের কোনও রাস্তা পৌরসভা বা সিটি করপোরেশনে যুক্ত হলে ডাটাবেজ থেকে তা বাদ দেওয়া হয়।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, বর্তমানে দেশের সব পৌরসভা ও সিটি করপোরেশনের রাস্তাগুলোর কোনও আইডি নম্বর নেই। রাস্তাগুলো স্থানীয় এলাকা বা ব্যক্তির নামে রয়েছে। অনেক রাস্তার কোনও নামও নেই। এ অবস্থায় অনেক সময় রাস্তাগুলো ইউনিয়ন পরিষদ থেকে পৌরসভায় প্রবেশ করলেও এলজিইডি তাদের বলে দাবি করে। আবার অনেক ক্ষেত্রে একই রাস্তার ভিন্ন ভিন্ন নাম উল্লেখ করে কয়েকবার টেন্ডার করে অর্থ তুলে নেওয়ার ঘটনাও ঘটে থাকে। এ অবস্থায় বিষয়টি নিয়ে গত ১৪ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে বিভাগের সম্মেলন কক্ষে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বিষয়টি নিয়ে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রাথমিকভাবে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন ও সিলেট সিটি করপোরেশনে চলমান আরবান রেজিলিয়েন্স প্রকল্পের আওতায় সড়কের আইডি নম্বর প্রদানের কাজ সম্পন্ন করতে হবে। অবশিষ্ট ৯টি সিটি করপোরেশনের আওতাধীন সড়কগুলোর আইডি নম্বর প্রদানের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, প্রধান প্রকৌশলী ও নগর পরিকল্পনাবিদদের নিয়ে সভার আয়োজন করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এছাড়া স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতর ৮টি বিভাগের ৮টি পৌরসভার সড়ক আইডি নম্বর প্রদানের বিষয়ে পরীক্ষামূলক প্রকল্প গ্রহণ করবে। উক্ত প্রকল্পের ফলাফলের ভিত্তিতে ‘এ’, ‘বি’ ও ‘সি’ ক্যাটাগরির পৌরসভার সড়কগুলোর পর্যায়ক্রমে আইডি নম্বর দেওয়া হবে।

আরবান রেজিলিয়েন্স প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক আবুল কাশেম জানান, প্রকল্পটির দুটি কম্পোনেন্ট রয়েছে। একটি কম্পোনেন্টে দুর্যোগ নিয়ে কাজ চলমান রয়েছে। আরেকটি কম্পোনেন্ট জিআইএস নির্ভর জরুরি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমে কাজ করার জন্য একজন পরামর্শক নিয়োগ করা হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় ঢাকা উত্তর, দক্ষিণ এবং সিলেট সিটি করপোরেশনে কাজ করা হচ্ছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, ‘এলজিইডি কর্তৃক সব গ্রামীণ সড়কের আইডি নম্বর দেওয়া হয়েছে। ওই আইডির মাধ্যমে তারা সড়কগুলোর উন্নয়নমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে। পৌরসভা এবং সিটি করপোরেশনের রাস্তাগুলো বিভিন্ন বিশিষ্ট ব্যক্তি ও এলাকার নামে পরিচিত। এলজিইডির মতো পৌরসভা ও সিটি করপোরেশনের আওতাধীন রাস্তাগুলোর আইডি নম্বর দেওয়ার বিষয়ে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন। আমরা এ বিষয়ে কাজ করছি।’

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ আহাম্মদ বলেন, ‘সড়ক ও জনপথ বিভাগ এবং এলজিইডি’র আওতাধীন রাস্তাগুলোর আইডি নম্বর থাকলেও আমাদের সিটি করপোরেশনের রাস্তার আইডি নম্বর নেই। সিটি করপোরেশন এলাকার রাস্তাগুলোর আইডি নম্বর দেওয়া দরকার। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওতায় আরবান রেজিলিয়েন্স প্রকল্পের একটি কম্পোনেন্টের মাধ্যমে সিটি করপোরেশনের রাস্তার আইডি নম্বর প্রদানের বিষয়ে একটি প্রাথমিক কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।’ স্থানীয় সরকার বিভাগের নগর উন্নয়ন-২ শাখার যুগ্ম-সচিব শায়লা ফারজানা বলেন, ‘পৌরসভা ও সিটি করপোরেশনের আওতাধীন রাস্তাগুলোর আইডি নম্বর দিতে এই মুহূর্তে পর্যাপ্ত সাপোর্ট নেই।’ কাজটি এলজিইডির মাধ্যমে করার জন্য তিনি অনুরোধ করেন। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘বিষয়টি আমাদের নজরে রয়েছে। আমরা প্রতিটি সড়কের জন্য আলাদা কোড নম্বর চালুর কাজ করছি। এ জন্য কয়েকটি সভাও করা হয়েছে। সভায় বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’

এমনিতেই দেশে দূর্নীতি ও অনিয়মের শেষ নেই। প্রায় সময় সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের নানা অপরাধ কর্মকান্ড প্রকাশ্যে উঠে আসছে। এক্ষেত্রে অনিয়ম প্রতিরোধে সড়কের জন্য আইডি নম্বর প্রদানের পদক্ষেপ গ্রহন করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। এতে করে সড়কে কাজ পাওয়া টিকাদারদেরও অনিয়মের প্রবনতা কমবে।

About

Check Also

ধোঁয়া আর বারুদের গন্ধে উত্তপ্ত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জ্যাব) কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ারশেল-সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। শিক্ষার্থীরাও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *