Monday , July 22 2024
Breaking News
Home / Countrywide / আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে বরখাস্ত চেয়ারম্যান

আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে বরখাস্ত চেয়ারম্যান

গত মাস দুই আগেই সড়ক উন্নয়নের নামে সরকারি অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া যায় তার বিরুদ্ধে। আর এ অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় সাময়িক বরখাস্তও করা হয় তাকে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে রয়েছে নানা দুর্নীতি-অনিয়মের অভিযোগ। আর তা সত্ত্বেও সাময়িক বরখাস্ত হওয়া মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর উপজেলার ধল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলামকে পুনরায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়ায় রীতিমতো ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের অনেক নেতাকর্মীরা।

এদিকে চাঁদাবাজির মামলায় আসামি হয়ে গ্রেপ্তার হওয়া ছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর ঘর প্রদান প্রকল্পে দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

গত ১১ আগস্ট স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. আবুজাফর রিপনের সই করা এক প্রজ্ঞাপন সূত্রে জানা গেছে, চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে সড়কের উন্নয়নমূলক কাজ না করে অর্থ উত্তোলন করে আত্মসাৎ, ‘জমি আছে ঘর নাই’ প্রকল্পের আওতায় স্ত্রীর নামে একই পরিবারে দুটি ঘর বরাদ্দ এবং সরকারি বরাদ্দের গভীর নলকূপ দুই চাচার বাড়িতে স্থাপন করার অভিযোগ প্রমাণিত হয়। জেলা প্রশাসকের সুপারিশে তাকে চেয়ারম্যান পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। পরবর্তীতে মন্ত্রণালয়ে নিজের দুর্নীতি স্বীকার করে ভবিষ্যতে রাষ্ট্র ও সমাজ বিরোধী কোনো কাজ করবেন না মর্মে মুচলেকা দিয়ে পুনরায় দায়িত্ব ফিরে পান।

২০১৭ সালের ২২ মার্চ স্থানীয় বালু ব্যবসায়ী আতোয়ার রহমান বাদী হয়ে চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলামকে প্রধান আসামি করে সিংগাইর থানায় চাঁদাবাজির মামলা করেন। এই মামলায় ১ দিন কারাগারেও থাকেন তিনি। পরবর্তীতে বাদী মামলাটি মীমাংসা করতে বাধ্য হন।

চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলামকে দেওয়া দলীয় মনোনয়ন বাতিলের জন্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কর্তৃক গঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন-২০২১ মনোনয়ন বোর্ডের কাছে আবেদন করেছেন জেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ও জেলা পরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট কহিনুর ইসলাম সানি।

দলীয় মনোনয়নের বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মাজেদ খান বলেন, ‘আমরা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে ৩ জনের নাম পাঠিয়েছি। প্রার্থী মনোনয়নের বিষয়ে তারাই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।’

এদিকে ইউপি চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে ওঠা এ অভিযোগের আলোকে তার ব্যবহৃত মুঠো ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও একবারের জন্যও কল রিসিভ করেননি তিনি, ফলে এ ব্যাপারে তার কাছ থেকে এখনো কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে এ বিষয়টি খুতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

About

Check Also

ধোঁয়া আর বারুদের গন্ধে উত্তপ্ত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জ্যাব) কোটা সংস্কার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ারশেল-সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। শিক্ষার্থীরাও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *