Sunday , July 21 2024
Breaking News
Home / National / আমরা ধোয়া তুলসিপাতা হয়েছে গেছি, তা মনে করি না: রেলমন্ত্রী

আমরা ধোয়া তুলসিপাতা হয়েছে গেছি, তা মনে করি না: রেলমন্ত্রী

বর্তমান সময়ে দেশের সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সেক্টরে অনিয়মের শেষ নেই প্রায় সময় সরকারের বিভিন্ন সেক্টরের নানা অনিয়মের ঘটনা বিভিন্ন গনমাধ্যমে প্রকাশ্যে উঠে আসছে। এদের মধ্যে দূর্নীতির একটি শীর্ষখাত হিসেবে পরিচিত রেল খাত। প্রায় সময় রেল খাতের নানা অনিয়মের কর্মকান্ড প্রকাশ্যে এসেছে। তবে বাংলাদেশের বর্তমান সরকার এই খাতের উন্নয়ন এবং দূর্নীতি প্রতিরোধে আপ্রান ভাবে কাজ করছে। সম্প্রতি এই খাতের দূর্নীতি এবং চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়া ঘটনা প্রসঙ্গে বেশ কিছু কথা জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন।।

বাংলাদেশ রেলওয়েকে দুর্নীতিমুক্ত করতে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন। রোববার (৩ অক্টোবর) দুপুরে রেলভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন মন্ত্রী। চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ বন্ধে রেলওয়ের নেওয়া ব্যবস্থা এবং রেলওয়ের চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে রেলওয়ে। সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নোত্তর পর্বে রেলওয়ের দুর্নীতি প্রসঙ্গে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে রেলমন্ত্রী বলেন, রেলওয়েতে আগে হয়তো দুর্নীতি ছিল। এখন যে আমরা ধোয়া তুলসিপাতা হয়েছে গেছি, তা মনে করি না। তবে চেষ্টা করছি দুর্নীতিমুক্ত একটি রেলওয়ে গড়ে তোলার। ব্যক্তিগতভাবে আমি এ চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি। আমার সঙ্গে যারা কাজ করছেন, তারা প্রত্যেকেই চেষ্টা করছেন বলে বিশ্বাস করি। তবে সাংবাদিকদের কাছে দুর্নীতির বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্যপ্রমাণ থাকলে আমরা ব্যবস্থা নেবো।

লিখিত বক্তব্যে নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, চলন্ত রেলে পাথর নিক্ষেপ একটি ভয়াবহ সমস্যা। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ রেলওয়ের বিভিন্ন রুটে ১১০টি চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। এতে ট্রেনের জালানার গ্লাস ভেঙেছে ১০৩টি। আ/হ/ত হয়েছেন অন্তত ২৯ জন যাত্রী। এ ধরনের ঘটনা যুক্তরাষ্ট্র, নিউজিল্যান্ডসহ উন্নত দেশগুলােতেও ঘটছে। এতে ট্রেনের যাত্রী এবং কর্মীরা আহত হচ্ছেন। এ অবস্থা থেকে আমরা পরিত্রাণ পেতে চাই। চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপরােধে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে চাই।

মন্ত্রী বলেন, রেলে যাত্রীদের নিরাপদে যাতায়াত নিশ্চিত করতে ট্রেনের ছাদে যাত্রী বা ভাসমান লোকজন ওঠা বন্ধ হয়েছে। রেল সম্পর্কে বর্তমানে মানুষের একটি ইতিবাচক ধারণা সৃষ্টি হয়েছে। জনগণের এ ধারণা আমরা ধরে রাখতে চাই। রেলওয়ের সেবার মান বাড়িয়ে ট্রেনকে একটি জনবান্ধব পরিবহনে রূপ দেবো। চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ প্রবণ এলাকাগুলো চিহ্নিত করা হয়েছে জানিয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের চারটি জেলার পাঁচটি জায়গা ঝুঁকিপূর্ণ। এলাকাগুলো হলো, চট্টগ্রামের পাহাড়তলী, সীতাকুণ্ড -বাড়বকুণ্ড, ফেনীর ফাজিলপুর-কালীদহ, নরসিংদী, জিনারদী ও ঘােড়াশাল এলাকা।

সম্প্রতি চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়ার ঘটনা ব্যপক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এই ঘটনাকে ঘিরে যাত্রীরা ননাআ ভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। এমনকি অনেকেই এই ছোড়া পাথরের শারীরিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। কিছু অসাধু দুষ্ঠ মা/দ/ক গ্রহনকারী এমন কর্মকান্ড ঘটনা ঘটাচ্ছে। তবে এই ঘটনা প্রতিরোধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে রেলওয়ে প্রশাসন। ইতিমধ্যে এই বিষয়ে গ্রহন করেছে নানা ধরনের পদক্ষেপ।

About

Check Also

জাহ্নবী কাপুরের ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও)

মন্দিরের সিঁড়ির একপাশে অসংখ্য ভাঙা নারিকেল। তার পাশে থেকে হামাগুড়ি দিয়ে উপরে উঠছেন বলিউড অভিনেত্রী …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *