Sunday , July 21 2024
Breaking News
Home / economy / আমরা এই শুক্রবার রেকর্ড সংখ্যক বিক্রি করতে চাই: রাসেল

আমরা এই শুক্রবার রেকর্ড সংখ্যক বিক্রি করতে চাই: রাসেল

বর্তমানে আলোচনা চলছে ই-কমার্স সাইট ইভ্যালি এর কর্মকান্ড নিয়ে মূলত ইভ্যালিতে গ্রাহকদের অর্থ নিয়ে যে সমস্ত কর্মকাণ্ড চলছে তাতে ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছে মানুষ সেইসাথে দেখা যাচ্ছে পাওনাদাররা তাদের পাওনা টাকা ফেরত পেতে উদগ্রীব হয়ে উঠেছে এবং সরকারের সহযোগিতা কামনা করছে যাতে করে অচিরেই তারা তাদের সেই পাওনা টাকা ফেরত পায়। তবে ইভ্যালির চেয়ারম্যান বারবার আশ্বস্ত করেছেন যে সময় সাপেক্ষে তারা সবার টাকা দিতে পারবেন

দেশের বর্তমান সময়ের আলোচিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালিকে নিয়ে আলোচনা চলছেই। গত রবিবার (১৮ জুলাই) ইভ্যালির বিরুদ্ধে আসা বিভিন্ন অভিযোগের জবাব দিতে প্রতিষ্ঠানটিকে ‘কারণ দর্শানোর সুযোগ’ দেয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত নেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এরপরই এক ফেসুবক স্ট্যাটাসে বানিজ্য মন্ত্রণালয়ের পদক্ষেপকে সাধুবাদ জানিয়েছেন ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ রাসেল।

এদিকে মঙ্গলবার ইভ্যালির অফিসিয়াল ফেসবুক গ্রুপে এক স্ট্যাটাসে মোহাম্মদ রাসেল লিখেছেন, এটি কারো অজানা নয় ইকমার্স একটি টার্নিং পয়েন্ট এ আছে। ইতিমধ্যে যে সকল ডিসকাউন্ট আপনারা পেয়েছেন সেগুলোর একটাই উদ্দেশ্য ছিল ইকমার্স এর প্রসার। আজ ইকমার্স এর ব্যাপক প্রসার হয়েছে। এখন হয়তো ডিসকাউন্ট পূর্বে মত বেশি থাকবে না । আপনাদের কেনাকাটা আগ্রহ কম থাকবে। আপনারা যদি ইভ্যালি অতিত কেনাকাটা সন্তুষ্ট থাকেন, আমার অনুরোধ আমাদের আগামী টি টেন-এ অন্তত একটি প্রয়োজনীয় জিনিস অর্ডার করুন। রেগুলার কেনাকাটা থেকে শুরু হোক আমাদের নতুন যাত্রা। এতে ইভ্যালি এর মূল শক্তি প্রকাশ পাবে। আর ইভ্যালি যত শক্তিশালী হবে, তত দ্রুত অতীতের ডেলিভারি সম্পন্ন করতে পারবে।

রাসেল আরও লিখেছেন, আমরা এই শুক্রবার রেকর্ড সংখ্যক বিক্রি করতে চাই যেখানে ডিসকাউন্ট পরিমাণ থাকবে অতীতের চেয়ে কম কিন্ত মূল্য মার্কেট রেট থেকে অবশ্যই কম। এই ইভ্যালি আপনাদের। ইভ্যালি হোক বাংলাদেশের সেরা ইকমার্স। আমি এ জন্য আপনাদের সহযোগিতা চাচ্ছি। নিজে কিনুন এবং সবাইকে বলুন। পরিশেষে রাসেল বলেন, অন্তত এই অর্ডারগুলোর ক্ষেত্রে আপনার পণ্য হাতে পাওয়ার পূর্বে আমরা টাকা পাবো না।

সম্প্রতিক সময়ে জনপ্রিয় ই-কমার্স সাইট গুলোর মধ্যে একটি হয়ে উঠেছিল ইভ্যালি। ব্যাপকভাবে তাদের নাম ছড়িয়ে পড়েছিল সারাদেশে এবং লক্ষ লক্ষ গ্রাহক তাদের এই সাইট থেকে পণ্য কেনার জন্য আগ্রহী হয়ে উঠেছেন অনেকেই পণ্য কিন্তু অগ্রিম টাকা দিয়েছেন এবং দেরিতে হলেও পণ্য পেয়েছেন তবে অধিকাংশ মানুষ রয়েছেন যারা অভিযোগ করছেন যে তারা দীর্ঘদিন থেকে টাকা দিয়ে এখনো পর্যন্ত তাদের কাঙ্ক্ষিত পণ্য হাতে পায়নি এবং টাকাও কোনভাবে পাওয়ার কোন সম্ভাবনা দেখছেন না তারা

About

Check Also

বাংলাদেশি টাকায় ১৭ জুলাই মুদ্রা বিনিময় হার

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্য দিন দিন সম্প্রসারিত হচ্ছে। তাই ব্যবসায়িক লেনদেন সচল রাখতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *