Monday , March 4 2024
Breaking News
Home / Politics / বিএনপি নির্বাচনে গেলে বন্দি নেতাকর্মীরা মুক্তি পাবে: মেজর আখতারুজ্জামান (অব.)

বিএনপি নির্বাচনে গেলে বন্দি নেতাকর্মীরা মুক্তি পাবে: মেজর আখতারুজ্জামান (অব.)

বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য মেজর আখতারুজ্জামান (অব.) বলেছেন, দেশের স্বার্থে তিনি একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চান। তাই আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমঝোতার উদ্যোগ নেয়। কথা হয়েছে সরকারি দল ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে। কারাবন্দি বিএনপি নেতাদের মুক্তিসহ বেশ কিছু ছাড় দিতে রাজি প্রধানমন্ত্রী। এখন বিএনপি আলোচনায় রাজি হলেই সমঝোতা প্রক্রিয়া শুরু হতে পারে।

আখতারুজ্জামান রোববার রাতে নিউইয়র্ক প্রবাসী সিনিয়র সাংবাদিক আমান উদ দৌলার সঙ্গে ফোনালাপে একথা বলেন।

আমান তার ভূমিকায় বলেন, বিএনপি এখন তিন ভাগে বিভক্ত। শমসের মবিন চৌধুরীর নেতৃত্বে তৃণমূল বিএনপি। একজন মেজর আখতারের নেতৃত্বে শোনা যাচ্ছে। আরেকজনের নেতৃত্বে আছেন তারিক রহমান। তারেক রহমানের বিএনপি নির্বাচনে যাবে বলে রাষ্ট্রপতির কাছে প্রস্তাব দিয়েছে। প্রতীকীভাবে শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হবেন, কিন্তু মন্ত্রিসভা ভেঙে দিতে হবে। আওয়ামী লীগের ৫ জন এবং বিএনপির ৫ জনকে নিয়ে মন্ত্রিসভা করতে হবে। এটাই প্রথম প্রস্তাব।
দ্বিতীয় প্রস্তাব হলো বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ সব রাজবন্দির মুক্তি। লাখ লাখ নেতাকর্মী কারাগারে।
এরপর আওয়ামীপন্থী আমলাদের নড়েচড়ে বসতে হবে। নিরপেক্ষ কর্মকর্তাদের আনতে হবে।
অন্যান্য জিনিস আছে. নির্বাচন কয়েকদিন পিছিয়ে যাবে, এমন প্রস্তাবও রয়েছে।

জবাবে আখতারুজ্জামান বলেন, আমি দলের কেউ নই, কোনো অংশ তৈরির চেষ্টাও করছি না। আমি বলেছি, তারেক রহমানের নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্তের বিষয়ে ড. নির্বাচনে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত সঠিক হয়নি। এদিকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে সমন্বয়ের চেষ্টা করছি।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র স্পষ্ট করে দিয়েছে যে তারা একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন দেখতে চায়। তারা জানুয়ারি পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন বলে জানিয়েছেন। দেশকে সংঘাতের মধ্যে না নিয়ে কীভাবে প্রধান দুই দলের মধ্যে সমঝোতা করা যায়, তা বের করার চেষ্টা করছি।

ইতিমধ্যে সরকারি দলের সঙ্গে কথা বলেছি। আমি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। কিন্তু বিএনপির সঙ্গে কথা বলতে পারিনি। বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলাম, পারিনি। আমি তারিক রহমানের সঙ্গে কথা বলতে চাই। কথা বলতে না পেরে তাকে বিভিন্ন মাধ্যমে সংবাদ পাঠিয়েছি। প্রস্তাব পাঠিয়েছি। আমরা ইতিমধ্যে আপনার উল্লেখিত কিছু প্রস্তাবনা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। গত ১৫ দিনে এ নিয়ে অনেক কথা হয়েছে।

তিনি বলেন, এখন সরকার বলেছে, বিএনপি নির্বাচনে এলে স্বাগত জানাবে। বিএনপি যদি দু-একদিনের মধ্যে ঘোষণা দেয়, তারা নির্বাচনে যাবে, তাহলে নির্বাচন এক-দুই সপ্তাহ পিছিয়ে যেতে পারে।

দ্বিতীয়ত, মন্ত্রিসভা ভেঙে দেওয়ার প্রস্তাব সংবিধানে নেই। ক্যাবিনেটগুলি ছোট করা যেতে পারে তবে ভেঙে দেওয়া যাবে না। তাই 2014 সালে 5 জন করার সুযোগ এখন নেই। তবে প্রধানমন্ত্রী দ্ব্যর্থহীন ভাষায় প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যে তিনি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করবেন।

তৃতীয়ত, তিনি প্রশাসনে রদবদলের কথা বলেছেন। আমি মনে করি প্রশাসনে এখন পরিবর্তনের প্রয়োজন নেই। পুরো প্রশাসন আওয়ামী লীগে পরিণত হয়েছে। এটা পরিবর্তন করে কাজে আসবে না। তাদের বিশ্বাস করা উচিত।

বললেন, একটা বিশেষ কথা। ২৯৮ প্রার্থীর তালিকা ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যে কেউ স্বতন্ত্রভাবে দাঁড়াতে পারে। তাদের বিরুদ্ধে দল কোনো ব্যবস্থা নেবে না। এটি একটি উল্লেখযোগ্য সিদ্ধান্ত। এতে করে তারা ভোটারদের কেন্দ্রে আনতে পারবেন। নির্বাচনকে প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক করা যায়। নির্বাচন অবাধ হবে।

মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান বলেন, আমি আলোচনা করতে পারি। আমি উভয় পক্ষের সাথে কথা বলতে পারি। আলোচনা করতে পারে তবে প্রথম কথা হলো বিএনপিকে নির্বাচনে আসার আগে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

দ্বিতীয় বিষয় হল রাজকীয় বন্দীদের মুক্তি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুক্তি দেওয়া হতে পারে। তালিকায় আমরা দেখব তিনি উদার। তার বিরোধিতা করলে তিনি হাল ছাড়বেন না। তিনি বলেন, আপনারা যত খুশি, গত ৬ মাসে যাদের গ্রেফতার বা সাজা হয়েছে, তাদের বের করে আনার ব্যবস্থা করা যেতে পারে। মহাসচিবসহ স্থায়ী কমিটির সকল নেতাকে গ্রেপ্তার করা হবে। এটা একটা বড় বিষয় নয়। তবে প্রথমেই বিএনপিকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে তারা নির্বাচনে আসবে কি আসবে না। এটা শর্ত নয়, নির্বাচনে এলে বিএনপিকে ছাড় দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর মন পরিষ্কার। তিনি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন করবেন। আর নির্বাচনের পর মানুষ বলে, সুষ্ঠু নির্বাচন হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। তিনি বলেন, বিএনপি নির্বাচনে আসুক। দেখা যাক সুষ্ঠু না হলে ব্যবস্থা নেব।

আখতারুজ্জামান বলেন, বিএনপি নির্বাচনে এলে যে সুবিধা আমরা পাব, তা হবে গত এক বছরে যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের মুক্তি। দ্বিতীয়ত, যে নেতাকর্মীরা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন, তাদের পালানো বন্ধ হবে। এবং আমি খুব তাড়াতাড়ি এটি করতে পারি।

About Zahid Hasan

Check Also

‘আ.লীগ রঙ দেখছে, কিন্তু রঙের ডিব্বা দেখেনি’ দল যে সিদ্ধান্ত নেবে মাথা পেতে নেব

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ফজলুর রহমান বলেছেন, বিএনপি যদি ব্যক্তিগতভাবে স্থানীয় নির্বাচনে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেয়, তাতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *