Wednesday , May 29 2024
Breaking News
Home / Countrywide / এবার দেশের গণতন্ত্র নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের তথ্য প্রতিবেদন তুলে ধরলেন ফখরুল, উঠে এলো ভিন্ন তথ্য

এবার দেশের গণতন্ত্র নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের তথ্য প্রতিবেদন তুলে ধরলেন ফখরুল, উঠে এলো ভিন্ন তথ্য

আওয়ামীলীগ সরকার নিজেদের ক্ষমতা ধরতে রাখতে বিচারবর্হিভূত হ/ত্যাকান্ডসহ বিভিন্ন ধরনের অপকর্মকান্ডে ঘটিয়েছে। তারা দেশের মানুষে কথা বলার স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে। উন্নয়নের নামে দুর্নীতি করে হাজার হাজার কোটি পাচার করছে যার জন্য দেশের অর্থনীতি হু/মকির মুখে পড়েছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল। দেশের মানবাধিকার প্রশ্ন নিয়ে যা বললেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দেওয়া মানবাধিকার প্রতিবেদন অনুযায়ী বাংলাদেশে গণতন্ত্র নেই। বাংলাদেশ এখন সম্পূর্ণ স্বৈরাচারী রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে।

সোমবার (১০ অক্টোবর) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নসরুল হামিদ মিলনায়তনে শহীদ জেহাদ দিবস উপলক্ষে জেহাদ স্মৃতি পরিষদ আয়োজিত স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন ১৯০টি দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে প্রতিবেদন দিয়েছেন। প্রতিবেদনটি লিখেছে মার্কিন মানবাধিকার বিভাগ। বাংলাদেশ নিয়ে ৭৪ পৃষ্ঠার প্রতিবেদন রয়েছে। ওই ৭৪ পৃষ্ঠার প্রতিটি জায়গায় বলা হয়েছে বাংলাদেশে গণতন্ত্র নেই, মানবাধিকার নেই। বাংলাদেশ এখন সম্পূর্ণ স্বৈরাচারী রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে স্পষ্ট বলা হয়েছে, এখানে জোর করে নির্বাচন করা হয়, আগের রাতেই নির্বাচনের আয়োজন করা হয়। বলা হচ্ছে, রাজনৈতিক কারণে খালেদা জিয়ার সাজা হয়েছে। এনফোর্স ডিসপিয়ারেন্স এখানে সংঘটিত হয় অর্থাৎ জোর করে লোকেদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। এখানে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নেই। এখানে বিচারবহির্ভূত হ/ত্যাকাণ্ড ঘটছে। হেফাজতে নিয়ে নি/র্যাতন করা হয় বলেও তারা স্পষ্ট করেছেন। তারা বলেন, আওয়ামী লীগের সুবিধাবাদীরা ছাড়া অর্থনীতিতে কেউ লাভবান হচ্ছে না। সেখানে আরও বলা হয়, যারা ইসলাম প্রচার করে, যারা অন্য ধর্মের প্রচার করে তারা রেহাই পায় না।আমি এটি খুব সংক্ষেপে বললাম।

কয়েকদিন আগে বাংলাদেশে এসেছিলেন জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের প্রধান বলে জানান বিএনপি মহাসচিব। যাওয়ার আগের দিন তারা সংবাদ সম্মেলন করে একটি প্রতিবেদন দেন। সেখানে তারা আরও বলেন, এখানে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। এখানে গু/ম হচ্ছে । মানুষের অধিকার হরণ করা হচ্ছে। এ কারণে তারা বলেছেন, গু/মের ঘটনা তদন্তে একটি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্ত সংস্থা গঠন করতে হবে।

মির্জা ফখরুল আরও বলেন, আজ কী অবস্থা, এই সরকারের বিরুদ্ধে কিছু বলা যাচ্ছে না। কথা বললে যেকোনো ব্যক্তি যেকোনো সময় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় নিয়ে যাবে, তাতে কোন জা/মিন নেই। এরকম অসংখ্য ঘটনার মধ্যে কয়েকদিন আগে ঘটে যাওয়া ঘটনা হৃদয়বিদারক। রাজবাড়ীতে এক নারী বিভিন্ন সংগঠনের সাথে জড়িত, ছোট দুটি সন্তান রয়েছে, পুলিশ রাত দুইটার দিকে তার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। বারবার বলেছেন দিনের বেলা নিন , রাতে নিয়ে যাচ্ছ কেন? সে ক/থা শোনেনি। তার অপরাধ কি? প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে কি একটু লিখেছে। আমি সেদিন বলেছিলাম, ওরা কি ভগবান হয়ে গেছে? তারা কি বিধাতা যে তাদের বিরুদ্ধে কিছুই বলা যাবে না? এই যে তাদের অবস্থা, কিছুই বলা যা/বে না। কিছুদিন আগে সাংবাদিক কনক সারওয়ারের বোনকে গ্রেফতার করে ৬/৭ মাস পর জামিন পান। তার অপরাধ কনক সরোয়ার সত্য কথাগুলো প্রকাশ করে।

তিনি বলেন, আমাদের সবার নামে অনেক মামলা আছে যারা রাজনীতি করে। আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়াকে সম্পূর্ণ মিথ্যা মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে তিন/চার বছর আটকে রাখা হয়েছে। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারিক রহমানকে একইভাবে একটি পুরনো সাজানো মামলায় সাজা ও নি/র্বাসিত করে রেখেছে। অন্যদিকে সাধারণ মানুষের কী অবস্থা? অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে চালের দাম। তিনি বলেন, প্রতি কেজি ১০ টাকায় চাল খাওয়াবেন। এখন ৭০ টাকা কেজি। বিনা পয়সায় সার দেবেন বলে বলেছিলেন। এখন সারের দাবিতে কৃষকদের রাস্তায় নামতে হচ্ছে। সার পাচ্ছেন না। ঘরে ঘরে চাকরি দেবেন বলে জানান। সেই চাকরি এখন সোনার হরিণে পরিণত হয়েছে। চাকরি পেতে হলে আওয়ামী লীগ হতে হবে, দ্বিতীয়ত ২০/৩০ লাখ টাকা দিতে হবে। আওয়ামী লীগের টিক চিহ্ন না থাকলে যারা চাকরিতে আছেন তারা কোনো পদোন্নতি পাবেন না। আওয়ামী লীগ এ রাষ্ট্র সৃষ্টি করেছে। যা দেশকে সম্পূর্ণ ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চলেছে।

বিদ্যুতের লোডশেডিং প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, এখন একটু পর পর বিদ্যুৎ চলে যায়। কিন্তু ঢাক-ঢোল আর আতশবাজি ফু/টিয়ে বলেছিল বাংলাদেশ বিদ্যুতে সম্পূর্ণ স্বয়ংসম্পূর্ণ। আর এখন কোন সমস্যা নেই। কিন্তু এখন লোডশেডিং। কারণ চুরি-দুর্নীতি। কুইক রেন্টাল পাওয়ার প্ল্যান্টটিও চুরি হয়েছে।

বিশ্বে চাহিদা কমে যাওয়ায় পোশাকের অবস্থা খারাপ হচ্ছে বলে দাবি করেন বিএনপি মহাসচিব। একদিকে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ছে, গ্যাসের দাম বাড়ছে, ডলারের দাম বাড়ছে। ফলে যারা গার্মেন্টস ব্যবসা করেন তাদের টিকে থাকা কঠিন হয়ে পড়েছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়ায় শ্রমিকদের অবস্থা করুণ। আমি খুব কমই বাজারে যাই। আমার স্ত্রী বাজার করে। প্রতিদিনই বলছে এখন আর বাজারে যাওয়া সম্ভব নয়, জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে ধৈর্য ধরে রাখা যাচ্ছে না।

শহীদ জেহাদ স্মৃতি পরিষদের আহ্বায়ক ডাকসুর সাবেক ভিপি আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিবের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপি নেতা ও সাবেক ছাত্রনেতা শামসুজ্জামান দুদু, আসাদুজ্জামান রিপন, হাবিবুর রহমান হাবিব, ফজলুল হক লিমন, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল।

প্রসঙ্গত, সরকার দেশের গনতন্ত্র ধ্বং/স করেছে বিষয়টি এখনো আমার না যুক্তরাষ্ট্র তার প্রতিবেদনে প্রকাশ করেছে বলে মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব। তিনি আরও বলেন, সরকার দেশের মানুষের ভোটাধিকার, বাক স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে তারা ক্ষমতার থাকার অধিকার হারিয়েছে।

 

 

About Babu

Check Also

অবন্তিকার পর এবার একই পথে হাঁটল মীম

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আ/ত্মহত্যা করেছে। শিক্ষার্থীর নাম শারভীন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *