Sunday , May 26 2024
Breaking News
Home / Countrywide / আমি শেখ হাসিনার চাকরি করি না, কার কি কাজ সেটা তার জানা উচিত: পরিকল্পনামন্ত্রী

আমি শেখ হাসিনার চাকরি করি না, কার কি কাজ সেটা তার জানা উচিত: পরিকল্পনামন্ত্রী

সম্প্রতি পরিকল্পনামন্ত্রী  এম এ মান্নানের আন্তর্জাতিক সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্য  সমালোচনায় উঠে এসেছে।   যে অনুষ্ঠানে তিনি জনগণের উদ্দেশ্যে বলেন আমি প্রধানমন্ত্রীর চাকরি করি না,  এবং আমার কাজে যে প্রধানমন্ত্রীকে খুশি করতে হবে এমনটাও নয় আমি শুধুমাত্র তার একজন সরকারি মাত্র।  যে বক্তব্যের পরে তিনি নেটিজেন ও সাধারণ মানুষের আলোচনায় আসেন।

ওই অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন, গত ১০-১৫ বছর ধরে বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাওয়ার পর আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আমরা একে অপরের সহকর্মী। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে খুশি করার জন্য এসব বলছি না। আমি তার পক্ষে কাজ করি না। আমি তার ক্যাবিনেট সহকর্মী। “আমি একটি পার্টি করছি, তিনি আমাকে তার সাথে নিয়ে এসেছেন। আপনাকে তাকে খুশি করতে হবে না। সে আমার অধিনায়ক, মহান অধিনায়ক। আমি তার সাথে একমত। আমাদের এখনই গুছিয়ে নিতে হবে। আপনি কার কাজ কী তাও জানতে হবে।

 

শনিবার (সেপ্টেম্বর) শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ আয়োজিত ‘৫০ বছরে বাংলাদেশের অর্জন-প্রত্যাশা ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

 

সব ক্ষেত্রে সামাজিক স্থিতিশীলতার প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের উন্নয়ন, প্রত্যাশা পূরণ ও প্রত্যাশা পূরণের জন্য সামাজিক স্থিতিশীলতা প্রয়োজন। শেখ হাসিনা বা অন্য কারোর নয়, আমাদের জন্য দরকার। এ কারণে আমাদের একসঙ্গে চলতে হবে।

 

তিনি বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশের সব ক্ষেত্রে অর্জন ও উন্নয়নের ইতিহাস শেষ হতে পারে না। আমরা ৫০ বছরের মধ্যে ২০-২২ বছর নষ্ট করেছি। সামরিক সরকার, আধাসামরিক সরকার, স্বৈরাচারী সরকার, এক ধরনের অসংলগ্ন সরকার আমাদের সময় নষ্ট করেছে। খাঁটি পুঁজিপতি বা লোভী পুঁজিপতি হলেও উন্নতি ও প্রবৃদ্ধি হবেই। কিন্তু সামরিক শাসনের কোনো অগ্রগতি নেই।

 

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘স্বাধীনতার আগে দেশের অবস্থার অনেক পরিবর্তন হয়েছে। সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিকসহ সব ক্ষেত্রেই আমরা অনেক কিছু অর্জন করেছি। যদি আমি এটি সম্পর্কে কথা বলতে শুরু করি, আমি ফলাফল সম্পর্কে কথা শেষ করতে পারি না।

 

তিনি বলেন, গ্রামে ছোট ছোট বিল আছে, মাছ আছে। শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে গ্রামবাসীরা খেয়ে আসছে। তবে এটি এখন বৈধভাবে ভাড়া দেওয়া হয়েছে।যারা ইজারা  নেয়  তারা আমাদের মত  তাদের টাকা আছে। আমি যা বলেছি তা আইন দ্বারা এবং আইন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত। এখানে দরিদ্ররা প্রাকৃতিক প্রোটিন পেতে কঠোর পরিশ্রম করেছে। কিন্তু তারা তা থেকে বঞ্চিত। আমি এই ধরনের অসংখ্য উদাহরণ দিতে পারি।

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ফরিদ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিলেটের নর্থ ইস্ট ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস। সম্মেলনের আয়োজক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর দিলারা রহমান এবং সদস্য সচিব প্রফেসর ড.. জায়েদা শারমিন উপস্থিত ছিলেন।

 

কর্মসূচির নেতৃত্বে ছিলেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. জহিরুল হক শাকিল ও বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. ফারজানা সিদ্দিকী।

 

উল্লেখ্য, দুই দিনব্যাপী এই আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বাংলাদেশ, যুক্তরাষ্ট্র, শ্রীলঙ্কা, নেপাল, তুরস্ক, ভারত, মঙ্গোলিয়া ও ডেনমার্কসহ আটটি দেশের গবেষকরা ৯৭টি গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। সম্মেলনে প্রায় সাত শতাধিক শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও গবেষক অংশগ্রহণ করেন। গবেষণাপত্রগুলি ব্যক্তিগতভাবে ১৪ টি সেশনে এবং দুটি সেশনে কার্যত দুই দিনের মধ্যে উপস্থাপন করা হয়েছিল।

 

পরিকল্পনা মন্ত্রীর এমন বক্তব্যের পর এক  পাঠক তার মন্তব্য  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তুলে ধরেন,  তিনি বলেন, এই বোকা মন্ত্রী জানেন না যে সংবিধান অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী তার মন্ত্রিসভার সদস্যদের নিয়োগ দেন এবং তারা সবাই প্রধানমন্ত্রীকে রিপোর্ট করেন, তাই মন্ত্রিসভার সব সদস্য প্রধানমন্ত্রীর অধীনস্থ। প্রধানমন্ত্রী যাকে খুশি নিয়োগ বা বাতিল করতে পারেন।

About Nasimul Islam

Check Also

অবন্তিকার পর এবার একই পথে হাঁটল মীম

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আ/ত্মহত্যা করেছে। শিক্ষার্থীর নাম শারভীন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *