Saturday , May 25 2024
Breaking News
Home / Countrywide / শেখ মুজিব জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন কিন্তু স্বাধীনতার ঘোষণা দেননি : হাফিজ

শেখ মুজিব জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন কিন্তু স্বাধীনতার ঘোষণা দেননি : হাফিজ

ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ স্বাধীনতার সংগ্রামে শুধু তারাই নেতৃত্ব দিয়েছে দেশের অন্য কোনো মানুষের অবদান নেই। ক্ষমতায় আসার পর থেকেই তারা এটি জনগণের সামনে তুলে ধরছে বলে অভিযোগ করেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর অব. হাফিজ উদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, আওয়ামীলীগ করলেই তারা মুক্তিযোদ্ধা অন্য কোনো দলে মুক্তিযোদ্ধা কেউ নেই। আওয়ামীলীগ দেশেকে শুধু তাদের মনে করে এদেশের মানুষের স্বাধীনতা অর্জনে ভূমিকা নেই। মুক্তিযুদ্ধকালে মুক্তিযোদ্ধা ছিল ৯০ হাজার, এখন আড়াই লাখ মন্তব্য করে যা বললেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর অব. হাফিজ উদ্দিন আহমেদ।

মুক্তিযুদ্ধকালে মুক্তিযোদ্ধা ছিল ৯০ হাজার, এখন আড়াই লাখ। কোথা থেকে এলো এতো মুক্তিযোদ্ধা? যারা মুক্তিযোদ্ধা বানিয়েছে তারাই মুক্তিযুদ্ধকে হেয় করেছে। আওয়ামী লীগ করলেই যদি মুক্তিযোদ্ধা হওয়া যায়, তাহলে আমরা কেন জীবন দিয়েছি? মুক্তিযোদ্ধাদের সন্মান দিলে তারা সন্মান পাবেনা বলেই ক্ষমতাসীনরা মুক্তিযোদ্ধাদের হেয় করতে এতো মুক্তিযোদ্ধা বাড়াচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর অব. হাফিজ উদ্দিন আহমেদ।

শনিবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে রণাঙ্গনের বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সমাবেশে তিনি আরও বলেন,শেখ মুজিব জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন কিন্তু স্বাধীনতার ঘোষণা দেননি। জিয়াউর রহমান তার পক্ষে ঘোষণা দেন। তবে স্বাধীনতার প্রেক্ষাপট তৈরি করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। আওয়ামী লীগ এটা মেনে নিতে পারে না। মেজর জিয়ার ঘোষণার পরপরই সেনানিবাসের বাঙালি সৈন্যরা বিদ্রোহ করে

মেজর হাফিজ বলেন, দেশের রাজনীতিবিদরা কাউকে সম্মান করেন না। সবাই তাদের দলকে বড় মনে করে। একাত্তরের যুদ্ধ ছিল জনযুদ্ধ। এখন বলা হচ্ছে একজন নেতা ঘোষণা করেছেন আর যুদ্ধ হয়েছে।

সর্বস্তরের মানুষের কষ্টের কথা ইতিহাস থেকে মুছে ফেলা হয়েছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ স্বাধীন হোক কোনো নেতা বলেনি। সবাই ছয় দফার কথা বলেছে। এক দফার স্বাধীনতার কথা আওয়ামী লীগও বলেনি। এক বছর আগ থেকে মাওলানা ভাসানী বলেছেন স্বাধীনতার কথা। দেশকে স্বাধীন করেছে মুক্তিযোদ্ধারা। এদেশের যতো লুটপাট করেছে রাজনীতিবিদরা। মুক্তিযোদ্ধারা করেনি। ১৬ই ডিসেম্বরের পর থেকেই মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ পরাজিত হতে শুরু করে। যারা জীবন বিপন্ন করে যুদ্ধ করেছে তাদেরকে কৃতিত্ব দেয়া হয়না। একজন রাজনৈতিক নেতার বক্তব্য শুধু শোনানো হয়। রাজনীতিবিদরা মনে করে মুক্তিযুদ্ধাদের কৃতিত্ব দিলে তারা ছোটো হয়ে যাবে।

তিনি আরও বলেন, আদালত এখন নীরবে কাঁদে। বাংলাদেশের মানুষের মতো অসহায় জাতি আর নেই। স্বৈরাচার থেকে জনগণকে মুক্ত করে আমাদের স্বপ্নের দেশ গড়তে হবে। আমাদের সোচ্চার ও ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আমরা সরকারকে পতন করতে চাই। সরকারের নীতির প্রতিবাদে রাজপথে নামতে চাই।

সমাবেশে মেজরও বক্তব্য রাখেন। সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিমসহ দেশের বিভিন্ন জেলার মুক্তিযোদ্ধারা।

প্রসঙ্গত, সরকার দেশে সব কিছু এক তরফা করছে যার কারনে আওয়ামীলীগ মানেই মুক্তিযোদ্ধা উপস্থাপন করছে দেশের মানুষের কাছে। আন্দোলনের মাধ্যমে তাদের হটিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে বলে মন্তব্য করেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর অব. হাফিজ উদ্দিন আহমেদ।

About Babu

Check Also

অবন্তিকার পর এবার একই পথে হাঁটল মীম

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আ/ত্মহত্যা করেছে। শিক্ষার্থীর নাম শারভীন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *