Saturday , May 25 2024
Breaking News
Home / Countrywide / কিছু চামচার কারনে ওনি এই ধারা বহাল রেখেছেন, আমি অখুশি নই, এখন নির্বিঘ্নে যাতায়াত করতে পারব: রাঙ্গা

কিছু চামচার কারনে ওনি এই ধারা বহাল রেখেছেন, আমি অখুশি নই, এখন নির্বিঘ্নে যাতায়াত করতে পারব: রাঙ্গা

বিগত বেশ কিছুদিন ধরে জাতীয় পার্টি তে অরাজগতা সৃষ্টি হয়েছে । জিএমকে  নিয়ে শুরু হয়েছে নানা ধরনের আলোচনা সমালোচনা। কয়েক মাস আগে একটি সংবাদ প্রচার হয় যেখানে  রওশন এরশাদ জিএম কাদেরকে তারপর থেকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য  ঘোষণা দেন। সম্প্রতি জাতীয় পার্টি থেকে বরখাস্ত হওয়া চেয়ারম্যান জিএম কাদেরকে স্বেচ্ছাচারিতা, অগণতান্ত্রিক ও অসাংবিধানিক বলে মন্তব্য করেছেন দলটির সাবেক মহাসচিব ও বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা।

তিনি বলেন আমি জানি যে জিএম আমাকে বরখাস্ত করতে পারে। আমি অখুশি নই, এখন নির্বিঘ্নে যাতায়াত করতে পারবেন বলে মন্তব্য করেন মসিউর রহমান রাঙ্গা।

বৃহস্পতিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্যসহ সব পদ থেকে বরখাস্তের বিষয়টি জানাতে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, আমি কাউন্সিলের সময় বলেছিলাম ওই ধারা পরিবর্তন করতে হবে। আমরা একটা সংবিধান জিএম চাই। কিন্তু কিছু কারণে তিনি এই ধারা বজায় রেখেছেন। ধারা পরিবর্তন না হলে দলটি করবে না। অন্য কোনো দলে যাবো না। আগামীতে দুই দলের বেশি দল থাকবে না। আমি বাঁচি বা না থাকি তাতে কিছু যায় আসে না। দল যাতে ভালোভাবে চলতে পারে, আমি খরা-বন্যায় মানুষের পাশে দাঁড়াব।

তিনি বলেন, আমি শুধু বলেছি, রওশন এরশাদকে অপসারণের প্রক্রিয়া সঠিক ছিল না। এতে জিএম কাদের ক্ষুব্ধ হন। আমি হঠাৎ মুক্তি পেয়েছিলাম। এখনো চিঠি না পেলেও গণমাধ্যমের মাধ্যমে জানতে পেরেছি। ১৮ বছরের জন্য প্রেসিডিয়াম সদস্য। আমাকে হয়রানি করা হয়নি, এমনকি পাবের কর্মীদেরও হয়রানি করা হয়েছিল। আমাদের সংবিধানের ১৩ অনুচ্ছেদে চেয়ারম্যান যা খুশি তাই করতে পারেন।

তিনি বলেন, সম্প্রতি রওশন এরশাদ পরিষদের জন্য চিঠি দিয়েছেন। ওই চিঠির পর পার্টির চেয়ারম্যান আমাকে সংসদীয় দলের বৈঠক ডাকতে বলেন। আমি এজেন্ডা নিয়ে কথা বললে তিনি (চেয়ারম্যান) বলেন, দরকার নেই। ৩১ আগস্ট আমরা দেখা করি, চিঠিতে স্বাক্ষর হয় ১ সেপ্টেম্বর। এরশাদকে বিরোধীদলীয় নেতার পদ থেকে সরাতে চিঠি দিতে গিয়েছিলেন রওশন।

বক্তা বললেন, কী দিলেন? এই কয়েকটা দিন থাকলে কী হতো?

রাঙ্গা বলেন, এরশাদ সাহেব যখন মারা যান, তখন দল ভাঙতে চলেছে। একদিকে জিএম কাদের, অন্যদিকে রওশন এরশাদ। দুজনকেই বুঝিয়ে বললাম। রওশন এরশাদ আমাকে বারবার ফোন করলেও আমি তার কাছে যাইনি। এবার দল ভাঙলে তা হবে ৮ বার। তিনি বলেন, গতকাল আমার ছবিতে আগুন দেওয়া হয়েছে। আমার সামনে আপত্তি করব না, এটা একটা গণতান্ত্রিক অধিকার, তারা হয়তো আমাকে পছন্দ করবে না। গতকালের লড়াইয়ে মানুষ আহত হওয়ার কারণে আরও বড় কিছু ঘটতে পারে, সেটা কি দলের জন্য ভালো হবে। আমি বলি রংপুরে আর কোনো সংঘাত হবে না।

১৪ সেপ্টেম্বর জাপা তাকে কোনো প্রকার শোক বা নোটিশ ছাড়াই মুক্তি দেয়। গত কাউন্সিলে মসিউর রহমান রাঙ্গা মহাসচিব নির্বাচিত হন। কয়েক মাস পর তাকে সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে সরিয়ে দেন জিএম কাদের। গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাপা মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদারের স্থলাভিষিক্ত হন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। এরশাদের মৃ/ত্যুর পর চেয়ারম্যান পদ নিয়ে জাপায় বিভক্তি দেখা দিলে জিএম কাদের দলকে পতনের হাত থেকে রক্ষা করেন।

কাদের ও রওশনের দ্বন্দ্ব আবারো দলে বিভক্তির জন্ম দেয়। এরপর সিনিয়র নেতাদের হস্তক্ষেপে সমঝোতা হয়। সেই সমঝোতায় রওশনকে সংসদে বিরোধীদলীয় নেতার পাশাপাশি দলের প্রধান পৃষ্ঠপোষক পদ দেওয়া হয়।

About Nasimul Islam

Check Also

অবন্তিকার পর এবার একই পথে হাঁটল মীম

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আ/ত্মহত্যা করেছে। শিক্ষার্থীর নাম শারভীন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *