Saturday , May 25 2024
Breaking News
Home / Countrywide / জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে কিনা জানা গেল চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের ব্যাপারে

জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে কিনা জানা গেল চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের ব্যাপারে

ইভিএমের বিষয়ে কম বেশি অনেকেই অবগত আছে। এটি হলো একটি ইলেকট্রনিক মেশিন যার মাধ্যমে ভোট গ্রহণ কাজ সম্পাদন করা হয়। বিশ্বের ওানেক দেশেই এই মেশিনটি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ইভিএম মেশিন হলো আমেরিকার তৈরি একটি ইলেকট্রনিক মেশিন। সম্প্রতি জানা গেল আসন্ন দ্বাদশ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ কার্য সম্পাদনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে কিনা।

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। কত আসনে এই মেশিন ব্যবহার করা হবে তা চলতি মাসেই ঠিক করা হবে। বর্তমানে ইসির দখলে থাকা ইভিএম ৭০-৮০টি আসনে ভোটগ্রহণ করতে সক্ষম। রোববার নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নির্বাচন কমিশনার মোঃ আলমগীর এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। তবে কতটি আসনে ইভিএম থাকবে তা এখনো ঠিক হয়নি। ইসি সক্ষমতা ও যৌক্তিকতা বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় সংখ্যক আসনে ইভিএম ব্যবহার করবে। আগামী সপ্তাহে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

তবে সংলাপে অংশ নেওয়া জাতীয় পার্টিসহ ১৫টি রাজনৈতিক দল মেশিন ব্যবহারের বিরোধিতা করেছে। সংলাপে অংশ না নেওয়া বিএনপিসহ ৯টি দল এই মেশিনে ভোট দেওয়ার বিরোধিতা করে আসছে। তবে আওয়ামী লীগসহ ১১টি রাজনৈতিক দল ইভিএম ব্যবহারের পক্ষে ভোট দিয়েছে। এছাড়া নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে ১১ আগস্ট কমিশন সভা ডাকা হয়। কিন্তু পরে তা স্থগিত করা হয়। কমিশনের বৈঠক ছাড়াই নির্বাচন কমিশনার মো. ইভিএম ব্যবহারের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান আলমগীর।

তার বক্তব্যের জবাবে সুশাসন সচিব ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ইভিএম জালিয়াতির মেশিন। এই মেশিনে মানুষের মতামত প্রতিফলিত হবে না। ইসি যেভাবে চাইবে সেইভাবে নিয়ন্ত্রিত মেশিন ফল প্রকাশ করবে। তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনায় ইসি যে আন্তরিক নয় তার প্রমাণ এই সিদ্ধান্ত। ইভিএম কারিগরি কমিটির প্রধান প্রয়াত অধ্যাপক ডা. জামিলুর রেজা চৌধুরীও এই মেশিন কেনার জন্য স্বাক্ষর করেননি। ইসি কী অস্বীকার করতে পারে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জালিয়াতির দুই ধরনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি। ইসি কি অস্বীকার করবে যে এই মেশিনের ফলাফল প্রোগ্রামিংয়ের মাধ্যমে পরিবর্তন করা যাবে? তাহলে তারা কীভাবে এমন সিদ্ধান্ত নিলেন, প্রশ্ন করেন তিনি।

কোনো দলের পরামর্শে জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে ড. আলমগীর বলেন, আমরা কারো মুখ দেখে সিদ্ধান্ত নেব না। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোটগ্রহণের জন্য ইভিএমের সক্ষমতা ও সুবিধা বিবেচনা করেই আমরা সিদ্ধান্ত নেব। তিনি বলেন, অনেক রাজনৈতিক দল ৩০০ আসনে ইভিএমে ভোট চায়। কোনো কোনো দল একটি আসনেও ইভিএম চায় না। আমরা সবাইকে সমান গুরুত্ব দিতে পারি না। আমরা আমাদের সামর্থ্য এবং ইভিএম যৌক্তিকতার উপর ফোকাস করব।

ইভিএমের বিরুদ্ধে বিএনপি ও জাতীয় পার্টির ভোটের বিষয়ে ইসির অবস্থান জানতে চাইলে তিনি বলেন, তারা কেন ইভিএমের বিরুদ্ধে বলেছেন তা আমরা বলতে পারব না। রাজনৈতিক বিষয়ে খোলাখুলি বলা হবে না, রাজনৈতিক কৌশল থাকতে পারে। আর বিএনপি আমাদের আলোচনায় আসেনি। ইভিএম নিয়ে তারা কী প্রচার করছে তা প্রমাণ করতে বলেছি। আপনি যখন আদালতে এসে সাক্ষ্য দেবেন না, সাক্ষ্য দেবেন না, তখন আমরা কতটা বা গুরুত্ব দিতে পারি? তাদের পরিষ্কার করতে হবে। তিনি আরও বলেন, ইভিএমের সুবিধা অসুবিধার চেয়ে বেশি। ইভিএম কারচুপির অভিযোগ প্রমাণের জন্য নির্বাচন কমিশন চ্যালেঞ্জ করলেও কেউ তা প্রমাণে এগিয়ে আসেনি। বিএনপি ইভিএম নিয়ে অভিযোগ করলেও সংলাপে না আসায় বা ইসিতে লিখিত বা মৌখিক অভিযোগ না দেওয়ায় তা আমলে নেওয়া হয়নি। অন্যদিকে, ইসিতে গিয়ে ইভিএম কারচুপির অভিযোগ করা অন্য দলগুলোর মধ্যে যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।

ইভিএমে ভোট গণনা কম এবং কারচুপির অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেন মো. আলমগীর বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৮০ শতাংশ ভোট পড়েছে। সে বলে তুমি আমাকে বলবে আমি খারাপ। এটা প্রমাণ করতে হবে। তা না হলে আমাকে খারাপ ভাবা হবে কেন? মানে এটা প্রোপাগান্ডা। আমি এটা বিশ্বাস করব না যতক্ষণ না আপনি প্রমাণ করবেন যে ইভিএম কারচুপি হতে পারে। কারচুপির বিষয়টি অভিযোগ থাকলেও প্রমাণিত নয়। যারা অভিযোগ করেছেন তাদের আমরা যাচাই-বাছাই করছি। কিন্তু যারা আমাদের কাছে এসে অভিযোগ করেননি আমরা তাদের আমলে নিইনি।

ইভিএমের সুবিধা-অসুবিধা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ব্যালট দেওয়ার পর রাতভর ভোট গণনা হবে। ভুল করলে দশবার গুনুন। ইভিএমে তেমন কোনো সমস্যা নেই। এর অনেক সুবিধা রয়েছে। আরেকটি সমস্যা হল অনেক আঙুলের ছাপ মেলে না। যাদের আঙুলের ছাপ মেলে না তাদের জন্য একটি পদ্ধতি রয়েছে। অনেকে বিশেষ করে বয়স্করা বুঝতে পারেন না কিভাবে এটি ব্যবহার করতে হয়। তারা মেশিন দেখে হতবাক। কখনও কখনও এটি ধীর মনে হয়। কিন্তু আসলে মেশিন ধীর হয় না. যারা জানেন তাদের ভোট দিতে 15 সেকেন্ড সময় লাগে। একজন আরেকজনকে ভোট দিতে পারবে না। ব্যালটে যেমন একজন আরেকজনকে ভোট দিতে পারেন। ইভিএমে সেই সুবিধা নেই।

কত আসনে ইভিএম ব্যবহার হবে এমন প্রশ্নের জবাবে ড. আলমগীর বলেন, ইভিএম ব্যবহার করা হবে। তবে আসন সংখ্যা নিয়ে আমরা এখনো সিদ্ধান্ত নেইনি। আমরা এটা নিয়ে আলোচনা করছি। আমাদের সামর্থ্য কত, আমাদের কতগুলো ইভিএম আছে তা নিয়ে আলোচনা। আমাদের কত প্রশিক্ষিত জনবল আছে? কতজন সাপোর্টিং কর্মী? আমি তাদের দেখেছি. এগুলো দিয়ে কত আসনে ভোট করা যায় তা দেখা হচ্ছে। আপনি যদি আরো করতে চান. আর কত (ইভিএম মেশিন) লাগবে? এটা কত খরচ হবে? তাই নতুন কোনো প্রজেক্ট নেবেন কিনা? আমাদের কি সেই সময় আছে? এসব বিষয় বিবেচনা করা হচ্ছে।

ভোট বাতিলের বিধান যুক্ত করে আরপিও সংশোধনের প্রস্তাব : বড় ধরনের অনিয়মের তথ্য থাকলে নির্বাচন কমিশন ভোট বাতিল করতে পারে- আরপিও সংশোধনের জন্য সরকারের কাছে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে। আলমগীর। তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনার জন্য আমাদের আরপিওই যথেষ্ট। তারপরও কিছু জায়গায় কিছুটা অস্পষ্টতা রয়েছে। আমরা মনে করি পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে কিছু জায়গা সংশোধন করা ভালো হবে। কমিশন মনে করে যে কয়েকটি ক্ষেত্রে পরিবর্তন বা সংশোধন সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য বর্তমান চ্যালেঞ্জগুলি অতিক্রম করা সহজ করবে। নির্বাচনে গুরুতর অনিয়ম হলে নির্বাচন স্থগিত করতে পারে নির্বাচন কমিশন। কিন্তু সেই নির্বাচন বাতিলের ক্ষমতা বিদ্যমান আরপিওতে নেই।

তিনি বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ, বিভিন্ন নির্বাচনের অভিজ্ঞতা ও চ্যালেঞ্জের আলোকে আমাদের মনে হয়েছে, ব্যাপক অনিয়মের ক্ষেত্রে নির্বাচন বাতিল করে পুনরায় নির্বাচন করা উচিত। সেজন্য নির্বাচন বাতিলের ক্ষমতা ইসির থাকতে হবে। তবে কেউ অভিযোগ করলে তা বাতিল করা হবে না। ইসির কাছে পর্যাপ্ত প্রমাণ থাকতে হবে। এরপর যথাযথ তদন্ত করা হবে এবং প্রমাণ সাপেক্ষে কমিটির সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে তা বাতিল করে নতুন নির্বাচন করা হবে। বিদ্যমান ব্যবস্থায় রিটার্নিং অফিসার একবার ফলাফল ঘোষণা করলে তা বাতিলের সুযোগ নেই। এই বিধান যুক্ত হওয়ার পর, যৌক্তিক ক্ষেত্রে আমরা যদি সে অনুযায়ী কাজ না করি তাহলে রাজনৈতিক দলগুলো আমাদের দায়ী করতে পারে।

আদমশুমারির চূড়ান্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর সীমানা পুনর্নির্ধারণ: মো: আলমগীর বলেন, আমরা আদমশুমারির প্রাথমিক প্রতিবেদন হাতে পেয়েছি। চূড়ান্ত রিপোর্ট পাইনি। আমাদের বাড়ির কাজ চলছে। তথ্য সংগ্রহের কাজ চলছে। আদমশুমারির চূড়ান্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর সীমানা পুনর্নির্ধারণের উদ্যোগ নেওয়া হবে। আমরা আইনের বিধান অনুযায়ী তিনটি শর্তের আলোকে এটি করব। এর জন্য আমাদের হাতে প্রচুর সময় আছে। হোমওয়ার্ক করা চূড়ান্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পরের সপ্তাহ থেকে কাজ শুরু হবে।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সীমান্তে বড় ধরনের পরিবর্তন হবে কি না সে বিষয়ে কিছু বলা যাচ্ছে না। আইন অনুযায়ী যা আসবে তাই হবে। আমরা আইনের বাইরে যেতে পারি না।

প্রসঙ্গত, ইভিএমের নিয়ে অনেক অভিযোগ শোনা গিয়েছে। অনেকে বলেন ইভিএমে নাকি ভোট কারচুপি করা হয়। আবার কিছু মানুষ ইভিএমের ব্যবহার ঠিক মত বোঝেনা তাই ইভিএমে তারা সঠিকভাবে ভোট দিতে পারে না বলেও অভিযোগ এসেছে। তবে যাই হোক বাংলার মানুষ চায় প্রত্যেকবারের মত এবারো যেন নির্বাচন সুষ্ঠ ও গ্রহণযোগ্য হয়।

About Shafique Hasan

Check Also

অবন্তিকার পর এবার একই পথে হাঁটল মীম

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আ/ত্মহত্যা করেছে। শিক্ষার্থীর নাম শারভীন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *