Tuesday , February 27 2024
Breaking News
Home / Entertainment / কারও কারও বাঁকা কথাও শুনতে হচ্ছে, প্রথমবার গণমাধ্যমে এসে আইয়ুব বাচ্চুর স্ত্রী

কারও কারও বাঁকা কথাও শুনতে হচ্ছে, প্রথমবার গণমাধ্যমে এসে আইয়ুব বাচ্চুর স্ত্রী

বাংলাদেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় ও খ্যাতিমান প্রয়াত একজন সঙ্গীতশিল্পী আইয়ুব বাচ্চু। যিনি গানের পাশাপাশি একজন ‘গীতিকার’ ও ‘গীটারবাদক’ হিসেবেও ভক্তদের মাঝে বেশ পরিচিতি পেয়েছিলেন। কর্মজীবনে একাধিক জনপ্রিয় ‘গান’ উপহার দিয়ে জায়গা করে নিয়েছেন কোটি দর্শকের মনে।

তবে এদিকে এবার প্রথমবারের মতো গণমাধ্যমের সামনে এলেন গুণী এই শিল্পীর স্ত্রী ফেরদৌস আক্তার চন্দনা। কথা বললেন তাদের যাপিত জীবন আর আইয়ুব বাচ্চুর গান ও গিটার নিয়ে বর্তমান পরিকল্পনার কথা।

তিনি আইয়ুব বাচ্চুর জন্মবার্ষিকীতে (১৬ আগস্ট) তাকে স্মৃতিচারণ করেন। ‘রিমেম্বারিং আইয়ুব বাচ্চু’ নামের এই বিশেষ অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেছেন তানভীর তারেক। এটিও তারই পরিকল্পনা ও প্রযোজনা।

এই আয়োজনে অংশ নিয়ে ফেরদৌস আক্তার চন্দনা বলেন, “সারাজীবন মিডিয়ার বাইরে ছিলাম। এটা বুঝিনি। বুঝতেও চাইনি। কিন্তু এখন বাচ্চুর স্মৃতি সংরক্ষণ আর ওর এই অমূল্য গানের সংরক্ষণের কাজগুলো আমি আমার দুই সন্তানের পক্ষ থেকে করছি। দায়িত্বগুলো আমার সন্তানের। ওরা বাইরে পড়াশুনা করছে বলে আমি দৌড়াদৌড়ি করছি। অনেক মানুষ এসব কাজে সহযোগিতা করছে। কারও কারও বাঁকা কথাও শুনতে হচ্ছে। সবাইকে তো আমি একে একে ব্যাখ্যা দিয়ে বোঝাতে পারব না। তানভীর ভাই বাচ্চুর খুব স্নেহশীল ছিলেন। তাই তার অনুরোধে এবং সময়ের প্রয়োজনে কিছু বললাম।

অনুষ্ঠানে এলআরবির ভবিষ্যৎ, সন্তানদের ইচ্ছা, আইয়ুব বাচ্চু ফাউন্ডেশনের কার্যক্রম, স্বামী আইয়ুব বাচ্চুর আবেগঘন স্মৃতিচারণসহ বিভিন্ন বিষয় উঠে আসে।

এ আড্ডায় আরও উপস্থিত ছিলেন এলআরবির গিটারিস্ট আবদুল্লাহ মাসুদ। তিনি স্মৃতিচারণ করে তার আত্মত্যাগের গল্প বলেন।

উল্লেখ্য, ১৯৭৬ সালে “আগলি বয়েজ” নামক একটি ব্যান্ড গঠনের মধ্যদিয়ে গানের ভূবনে প্রথমবারের মতো পা রাখেন আইয়ুব বাচ্চু। কর্মজীবনের শুরু থেকেই জনপ্রিয়তার শীর্ষে ছিলেন গুণী এই শিল্পী। মাত্র ৫৬ বছর বয়সেই ২০১৮ সালের ১৮ অক্টোবর রাজধানী ঢাকায় না ফেরার দেশে পাড়ি জমান তিনি।

About Rasel Khalifa

Check Also

১৪ বছর পরে সুখবর দিলেন মেহজাবীন

ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরী। নাটকে অভিনয়ের পাশাপাশি ওটিটি প্ল্যাটফর্মেও কাজ করছেন তিনি। অনেকদিন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *