Wednesday , February 28 2024
Breaking News
Home / Countrywide / এবার চীনের কাছ থেকে ঋণ নিতে সতর্ক করলেন অর্থমন্ত্রী, জানা গেল কারন

এবার চীনের কাছ থেকে ঋণ নিতে সতর্ক করলেন অর্থমন্ত্রী, জানা গেল কারন

আ হ ম মুস্তফা কামাল হলেন গণপ্রজাতন্ত্রী সরকারের মাননীয় অর্থমন্ত্রী। এই সম্মানীয় পদে অধিষ্ঠিত হবার পর থেকে তিনি সততা ও নিষ্ঠার সহিত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। এর পূর্বেও তিনি আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে দায়িত্ব পালন করে এসেছেন।সম্প্রতি তিনি তার এক বক্তব্যের বলেছেন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী এএইচএম মুস্তফা কামাল সতর্ক করেছেন উন্নয়নশীল দেশগুলিকে।

উন্নয়নশীল দেশগুলোকে সতর্ক করেছেন বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের (বিআরআই) মাধ্যমে আরও ঋণ নেওয়ার বিষয়ে চীনের দুবার চিন্তা করা উচিত। কারণ বৈশ্বিক মুদ্রাস্ফীতি এবং প্রবৃদ্ধি ঋণগ্রস্ত উদীয়মান বাজারের ওপর চাপ বাড়ায়। ফাইন্যান্সিয়াল টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে কামাল আরও বলেন যে চীনকে তার ঋণ মূল্যায়নে কঠোর হতে হবে। কারণ দুর্বল ঋণের সিদ্ধান্ত দেশগুলোকে সংকটে ঠেলে দেওয়ার ঝুঁকি রাখে। বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী শ্রীলঙ্কার দিকে ইঙ্গিত করেছেন, যেখানে চীনা-সমর্থিত অবকাঠামো প্রকল্পগুলি আয় করতে ব্যর্থ হয়েছে এবং দ্বীপ দেশটিকে একটি গুরুতর অর্থনৈতিক সংকটে নিমজ্জিত করেছে। কামালের হুঁ/শিয়ারি বৈশ্বিক পরিস্থিতি যাই হোক না কেন, বিআরআই প্রকল্পে রাজি হওয়ার আগে সবাইকে দুবার ভাবতে হবে। তিনি আরও বলেন, “সবাই চীনকে দোষারোপ করছে। কিন্তু চীন থেকে ঋণ নেওয়ার পর আমাদের নিজেদেরই দায়িত্ব নিতে হবে।” কামালের মতে, “শ্রীলঙ্কার সংকট থেকে একটি বিষয় স্পষ্ট যে চীন কোন প্রকল্পে ঋণ দেবে তা ঠিক করার ক্ষেত্রে যথেষ্ট কঠোর ছিল না।

একটি প্রকল্প ঋণ দেওয়ার আগে “যুক্তি অধ্যবসায়” হতে হবে। শ্রীলঙ্কার পরে, আমরা অনুভব করেছি যে চীনা কর্তৃপক্ষ এই বিশেষ দিকটিতে মনোযোগ দিচ্ছে না, যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গত মাসে, রাশিয়ার ইউক্রেনে পূর্ণ মাত্রায় আগ্রাসনের পর তার বৈদেশিক রিজার্ভের উপর চাপ সৃষ্টির পর পণ্যের দাম বৃদ্ধির কারণে বাংলাদেশ আইএমএফের কাছে সাহায্য চেয়েছিল। চীন, একটি বিআরআই অংশগ্রহণকারী, বেইজিংয়ের কাছে প্রায় 4 বিলিয়ন ডলার পাওনা, বা তার মোট বৈদেশিক ঋণের 6 শতাংশ। অর্থমন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক এবং জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সিসহ অন্যান্য বহুপাক্ষিক ও দ্বিপাক্ষিক ঋণদাতাদের কাছে বাংলাদেশ আরও ৪ বিলিয়ন ডলার চেয়েছে। তাদের কাছ থেকে দেশ ঋণ পাবে বলে তিনি আশাবাদী।
শ্রীলঙ্কা, যা মে মাসে তার ঋণ খেলাপি, একটি জরুরি বেলআউটের জন্য IMF এর সাথে আলোচনা করছে। পাকিস্তানের বৈদেশিক রিজার্ভও উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেছে। গত মাসে, পাকিস্তান 7 বিলিয়ন সহায়তা প্যাকেজের অংশ হিসাবে 1.3 বিলিয়ন মুক্তির জন্য আন্তর্জাতিক তহবিলের সাথে একটি প্রাথমিক চুক্তিতে পৌঁছেছে। জ্বালানি সংকটের কারণে দিনে কয়েক ঘণ্টা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে বাংলাদেশ। দেশটির বৈদেশিক রিজার্ভও এক বছর আগের ৪৫ বিলিয়ন ডলার থেকে ৪০ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে এসেছে। বিশ্লেষকরা বলছেন যে দেশের শক্তিশালী রপ্তানি খাত, বিশেষ করে এর পোশাক বাণিজ্য, সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক ধাক্কা সামলানোর জন্য এটিকে সাহায্য করেছে এবং এর রিজার্ভ এখনও প্রায় পাঁচ মাসের মূল্যের আমদানি কভার করার জন্য যথেষ্ট। তবে কামাল একটা বিষয়ে আশ্বস্ত করেছেন, ‘বাংলাদেশ চাপে ছিল কিন্তু শ্রীলঙ্কার মতো খেলাপি হওয়ার আশঙ্কা ছিল না।

প্রসঙ্গত, সাধারণ বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলো দাতা সংস্থার কাছ থেকে দেশের মধ্যকার উন্নয়ন বা অন্যান্য প্রয়োজনে কাজে লাগিয়ে থাকে। তবে ঋণের নেবার ক্ষেত্রে বুঝে শুনে ঋণ না নিলে পড়তে হয় অকল্পনীয় বিপদে, যেমনটি পড়েছে শ্রীলঙ্কা। আর সেই বিষয়েই সতর্ক করছেন অর্থমন্ত্রী।

About Babu

Check Also

মার্কিন প্রতিনিধিদলের মাধ্যমে বাংলাদেশকে যেসব বার্তা দিল যুক্তরাষ্ট্র

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর প্রথমবারের মতো ঢাকা সফর করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চপর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *