Sunday , March 3 2024
Home / Entertainment / এবার আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় হিরো আলমের নাম, বিব্রতকর পরিস্থিতে পুলিশ

এবার আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় হিরো আলমের নাম, বিব্রতকর পরিস্থিতে পুলিশ

হিরো আলম বাংলাদেশের মিডিয়া জগতে বহুল আলোচিত একটি নাম। তিনি প্রায় সময়েই তার নানার কাজ কর্মের মাধ্যমে আলোচনার শীর্ষে অবস্থান করেন। বগুড়ার বাসিন্দা এই হিরো আলম সামাজিক মাধ্যমে তার একটি ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে। এই ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে ডিস ব্যাবসায়ী থেকে তিনি সবার পরিচিত হয়ে ওঠেন।

বহুল আলোচিত তারকা হিরো আলমকে রবীন্দ্রনাথ ও নজরুলের গান না গাইতে ডেকে জামিনে নেওয়ার ঘটনা দেশের সীমানা ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে পৌঁছেছে। ব্রিটিশ ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশন-বিবিসি এবং এজেন্স ফ্রান্স-প্রেস-এএফপি হিরো আলমের পুলিশ পিক-আপের খবর দিয়েছে। রবীন্দ্রনাথ-নজরুলের গান না গাওয়া এবং নাম থেকে ‘হিরো’ শব্দটি বাদ দেওয়া, ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ অফিসে ডেকে নিয়ে কটূক্তি করাসহ পুলিশের তৎপরতার ব্যাপক সমালোচনা চলছে। এক প্রকার বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছেন খোদ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও। তারা বলছেন, হিরো আলমকে জিজ্ঞাসাবাদে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করলে এই বিতর্ক হতো না। ২৭ জুলাই ভোরে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের সাইবার ও বিশেষ অপরাধ বিভাগ হিরো আলমকে রামপুরায় তার নিজস্ব কার্যালয় থেকে তুলে নিয়ে যায়। মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে তাকে প্রায় ৮ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

মূলত একটি ছোট নাটকে পুলিশ কনস্টেবলের পোশাকে ডিআইজি চরিত্রে অভিনয় করে তাকে তুলে আনা হয়েছিল। তবে আশরাফুল আলম সাইদ ওরফে হিরো আলমের অভিযোগ, পুলিশ তাকে রবীন্দ্রনাথ ও নজরুলের গান না গাইতে এবং ডিবি কার্যালয়ে তার নাম থেকে ‘হিরো’ শব্দটি বাদ দেওয়ার নির্দেশ দেয়। হিরো আলমকে রবীন্দ্রনাথ ও নজরুলের গান গাইতে নিষেধ করা হয়, যার ফলে গোয়েন্দা পুলিশের ভূমিকা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হয়। একই সঙ্গে নাম থেকে হিরো শব্দটি সরিয়ে চেহারা নিয়ে মজা করাকে অনেকে বর্ণবাদী আচরণ বলে থাকেন। এরই মধ্যে বিষয়টি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে আসায় বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে পুলিশ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, পুলিশের ইউনিফর্ম সম্পর্কে তাকে সতর্ক করাই উপযুক্ত। কারণ, নাটক বা নাটকে পুলিশের ইউনিফর্মে অভিনয়ের অনুমতি পাওয়ার ব্যাপার আছে। একই সঙ্গে পোশাক ও র‌্যাঙ্ক-ব্যাজের মাধ্যমে পুলিশের পদমর্যাদা ও পদবি নির্দেশ করা হয়। হিরো আলম কনস্টেবল পদমর্যাদার পোশাক পরে ডিআইজি পদমর্যাদার ছদ্মবেশ ধারণ করে পুলিশের মানহানি করেছেন।

এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, তবে পুলিশ কোনোভাবেই হিরো আলমকে ফোন করে তার নাম, চেহারা বা কোনো গান গাইবেন কি না, সে বিষয়ে নির্দেশনা দিতে পারবেন না। এতে সামগ্রিকভাবে পুলিশের সম্মান আরও ক্ষুন্ন হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সাইবার ও স্পেশাল ক্রাইম বিভাগের এ কাজে ক্ষুব্ধ ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার। তিনি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ডেকে তিরস্কার করেন। পুলিশের সকল কার্যক্রম আইনানুগভাবে পরিচালনা করতে হবে এবং বাংলার পুলিশ প্রবিধান বা পিআরবি মেনে চলতে হবে। পুলিশ সদর দফতরের এক কর্মকর্তা বলেন, করোনা ভাইরাসের সময় দুটি ঘটনায় পুলিশের সুনাম ক্ষুন্ন হয়েছে। পুলিশ সদর দপ্তর থেকে দেশের সব ইউনিটকে আরও সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে বলা হয়েছে। আইনের বাইরে কোনো কাজ করে বিতর্ক সৃষ্টি করলে তাকে বিভাগীয় শাস্তির আওতায় আনা হবে বলেও জানান ওই কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য, হিরো আলম প্রায় তার কর্মকান্ডের জন্য ব্যাপক সমালোচিত হয়ে থাকেন। সম্প্রতি এক গানকে কেন্দ্র করে তিনি আইনি জটিলতাও পরেছিলেন বলে জানা গিয়েছিল। ডিএমপির সঙ্গে মুচলেকা দিয়ে হিরো আলম বলেছিলেন, জীবনে আর বিকৃত সুরে নজরুল গীতি ও রবীন্দ্রসঙ্গীত গাইবেন না। গত ২৭ জুলাই সকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান হারুন অর রশিদ এ তথ্য জানিয়েছিলেন।

 

 

 

About Syful Islam

Check Also

জীবন মানুষকে কোথায় দাঁড় করায় কেউ বলতে পারবে না: মৌ

জনপ্রিয় উপস্থাপিকা মৌসুমী মৌ’র ফুসফুসে সং/ক্রমণ ধরা পড়েছে। তাকে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সামাজিক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *