Thursday , February 22 2024
Breaking News
Home / Countrywide / প্রতিশোধ হিসেবে ইউনূসের কাছ থেকে আইনজীবী নিলো বিপুল পরিমান টাকা, আরো তাকে বললো সুদখোর

প্রতিশোধ হিসেবে ইউনূসের কাছ থেকে আইনজীবী নিলো বিপুল পরিমান টাকা, আরো তাকে বললো সুদখোর

ড. মুহাম্মদ ইউনূস হলেন বাংলাদেশে গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক এবং সেই সাথে তিনি ক্ষুদ্রঋণ ব্যবস্থার প্রবর্তক। তিনি বাংলাদেশে একমাত্র ব্যক্তি যিনি শান্তিতে পেয়েছেন নোভেল পুরুষ্কার। সম্প্রতি জানা গেল ড. মুহাম্মদ ইউনূসের গ্রামীণ টেলিকমের কাছ থেকে ১৬ কোটি টাকা ফি নিয়েছেন বলে আদালতকে হলফনামা আকারে জানিয়েছেন আইনজীবী ইউসুফ আলী।

শান্তিতে নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের গ্রামীণ টেলিকমের কাছ থেকে ১৬ কোটি টাকা ফি নিয়েছেন বলে আদালতকে হলফনামা আকারে জানিয়েছেন আইনজীবী ইউসুফ আলী।

মঙ্গলবার বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের হাইকোর্ট বেঞ্চকে তিনি এ তথ্য জানান। পরে ফি আদায়ের বিষয়টি স্পষ্ট করতে হলফনামা দাখিলের নির্দেশ দেন আদালত। আদালতে আইনজীবী ইউসুফ আলীর পক্ষে ছিলেন আহসানুল করিম। এর আগে হাইকোর্টের আরেক বেঞ্চ আইনজীবী ইউসুফের ফি বারো কোটি টাকা নিয়ে রুল জারি করেন।

৩ জুলাই আইনজীবী ইউসুফ আলী জানান, তার সব হিসাব জব্দ করা হয়েছে। ওই দিন গ্রামীণ টেলিকমের সঙ্গে ১২ কোটি টাকার সমঝোতার অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, গ্রামীণ টেলিকমের ১২ কোটি টাকা বঞ্চিত করে মামলা তুলে নেওয়ার যে তথ্য প্রচারিত হয়েছে তা ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও অসত্য।

“আমরা তথাকথিত সামাজিক ব্যবসার পতাকাবাহী সুদখোর ইউনূসকে ‘চুম্বন’ করেছি, প্রকৃতপক্ষে, গ্রামীণ টেলিকমের কর্মীদের প্রাপ্য ন্যায্য পাওনা।”

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কত পেয়েছি তা বলতে চাই না। এটি ক্লায়েন্টের সাথে আমার গোপনীয়তা চুক্তি। আমার ক্লায়েন্ট আমাকে যা দিয়েছে তা আমি পেয়েছি। আমাকে নিয়ে ১২ কোটি টাকায় যে গল্প বানানো হয়েছে তা সম্পূর্ণ হাস্যকর গল্প ছাড়া আর কিছুই নয়। “সকালে গিয়ে দেখি, আমার সব ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হয়েছে। আমার তিনটি ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট এবং আমার দুটি অংশীদারের এবং আমার একটি চেম্বার- সব অ্যাকাউন্ট জব্দ করা হয়েছে।’

ইউসুফ আলী বলেন, লিখিত চুক্তির শর্তানুযায়ী গ্রামীণ টেলিকম সেটেলমেন্ট অ্যাকাউন্টে ৪৩৭ কোটি টাকা পরিশোধের পর প্রত্যেক শ্রমিক ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে হাজির হয়ে বিজ্ঞ আদালতে জবানবন্দি দেন এবং মামলা প্রত্যাহার করেন। একইভাবে, তাদের অনুরোধের ভিত্তিতে, আমরা মাননীয় হাইকোর্ট বিভাগের সামনে বিচারাধীন সমস্ত রিট মামলা, আদালত অবমাননার মামলা এবং গ্রামীণ টেলিকম দ্বারা আনা উল্লিখিত কোম্পানি বিষয় নং ২৭১/২০২১ প্রত্যাহার করে নিচ্ছি।

“উক্ত মামলাগুলি প্রত্যাহার করার পরে, গ্রামীণ টেলিকমের কর্মীরা সন্তুষ্ট হয়েছিলেন এবং সম্পূর্ণ স্বচ্ছতা বজায় রেখে ইউনিয়নের অ্যাকাউন্ট থেকে প্রদেয় চেকের মাধ্যমে আমাদের ফি পরিশোধ করেছিলেন।” ১২ কোটি টাকা নিষ্পত্তির কথা জানতে পেরে বিস্ময় প্রকাশ করেন বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

আদালত বলেন, আমরা শুনেছি, টাকার বিনিময়ে শ্রমিকদের আইনজীবীদের মামলা আপস করতে বাধ্য করা হয়েছে।

“আদালত ব্যবহারে কোনো অনিয়ম হওয়া উচিত নয়। সবকিছু আইন অনুযায়ী না হলে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হবে। আমি চাই না আদালত ও আইনজীবীর সততা নিয়ে কোনো প্রশ্ন উঠুক। ওইদিন আদালতে গ্রামীণ টেলিকমের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খান। ইউসুফ আলী শ্রমিকদের পক্ষে শুনানি করেন।

মুহাম্মদ ইউনূসের মালিকানাধীন গ্রামীণ টেলিকম বন্ধের জন্য হাইকোর্টে একটি আবেদন করা হয় গত ৭ ফেব্রুয়ারি, নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. গ্রামীণ টেলিকম ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের পক্ষ থেকে এই আবেদন করা হয়েছে। শ্রমিকদের কাছে গ্রামীণ টেলিকমের পাওনা আড়াই হাজার কোটি টাকার বেশি। এই বকেয়া টাকার দাবিতে কোম্পানির অবসান চাওয়া হয়েছে।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে কর্মী ছাঁটাইকে কেন্দ্র করে গ্রামীণ টেলিকমে শ্রমিক অসন্তোষ বিরাজ করছিল। গ্রামীণ টেলিকম কর্তৃপক্ষ লেবার এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন (বি-২১৯৪) সিবিএর সাথে পরামর্শ না করে একটি নোটিশে ৯৯ জন কর্মীকে ছাঁটাই করেছে। গ্রামীণ টেলিকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আশরাফুল হাসান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ছাঁটাই করা হয়।

পরে ওই নোটিশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করেন ২৮ জন শ্রমিক। এই ছাঁটাইকে কেন্দ্র করে ড. ইউনূসকে হাইকোর্ট তলব করেন। ৪ এপ্রিল, ২০২১-এ, হাইকোর্ট গ্রামীণ টেলিকমে কর্মীদের পুনর্বহাল করার নির্দেশও দেয়। গত বছরের ১২ সেপ্টেম্বর শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান মো. মুহাম্মদ ইউনূসসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করে ঢাকার কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তর। ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে এ মামলা করেন অধিদপ্তরের শ্রম পরিদর্শক আরিফুজ্জামান।

প্রসঙ্গত, ক্ষুদ্রঋণের ব্যবস্থা প্রচলন করার পর থেকে অনেক মানুষ ঋণ নেওয়া সেই অর্থ দিয়ে নিজেদের ভাগ্যের এনেছে বেশ পরিবর্তন। তারা এখন স্বাবলম্বী হয়েছে এবং দারিদ্রকে চিরতরে জানিয়েছে বিদায়।

About Shafique Hasan

Check Also

এবার মুশতাকের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ তুললেন তিশার মা

তিশা ও খন্দকার মোশতাক আহমেদের বিয়ে নিয়ে প্রথমবারের মতো মিডিয়ার সামনে এলেন সিনথিয়া ইসলাম তিশার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *