Monday , March 4 2024
Breaking News
Home / Countrywide / এবার ছাত্রলীগের দ্বন্দ্বে অচল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, জানা গেল কারন

এবার ছাত্রলীগের দ্বন্দ্বে অচল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, জানা গেল কারন

সম্প্রতি দলীয় পদ কেন্দ্র করে নানা ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনায় জড়িয়ে পড়ছে রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা। যার কারনে বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকান্ডের ঘটনা ঘটে। এমন ঘটনার কারনে জনগনের নিকট নেতিবাচক ধারনা তৈরী হয় দল সম্পর্কে। সমালোচনা মুখে পড়েন শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। তেমন ঘটনা এবার ঘটল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে।

ছাত্রলীগের কমিটিকে কেন্দ্র করে রবিবার (৩১ জুলাই) রাত থেকেই অচল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি)। ক্যাম্পাসে অচলাবস্থার ১৪ ঘণ্টা পেরোলেও কোনও পদক্ষেপ নেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের। ফলে ভোগান্তি বাড়ছে সাধারণ শিক্ষার্থীদের। স্থগিত করতে হয়েছে ক্লাস-পরীক্ষাও।

সোমবার বিকেলে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের জিরো পয়েন্টের প্রধান ফটক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন পদবঞ্চিত কর্মীরা। ফটকে ঝুলছে তালা। পাশের পুলিশ বক্সে অলস সময় কাটাচ্ছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। এদিকে, প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা কয়েক দফা ঘুরে গেলেও কার্যকর কোনও পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি তাদের।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্র জানায়, আন্দোলনের কারণে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, ক্রীড়া বিজ্ঞান, মেরিন সায়েন্স ও ফিন্যান্স বিভাগের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। ক্যাম্পাসের বাইরে থাকায় একমাত্র চারুকলা ইনস্টিটিউটই পরীক্ষা পরিচালনা করতে পেরেছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ভারপ্রাপ্ত পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আমির মুহাম্মদ মুছা।

এদিকে রোববার মধ্যরাত থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক অবরোধ করে রাখা হয়। ফলে ভোর থেকে শিক্ষক বহনকারী কোনো বাস শহরে যেতে পারেনি। সকালে ঝাউতলা স্টেশন থেকে দুই লোকো মাস্টার ও শাটল ট্রেনের এক গার্ডকে অপহরণ করা হয়। পরে তাদের ছেড়ে দেওয়া হলেও শাটল ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়নি।

সাধারণ শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, ছাত্রলীগের একাংশের রোষানলে মুখে ক্ষতির শিকার হচ্ছেন তারা। চতুর্থ বর্ষের ছাত্র সাইদুল ইসলাম বলেন, ‘সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ। প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। শীঘ্রই আমাদের পরীক্ষা শুরু হবে। আমরা এভাবে সময় নষ্ট করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে আসিনি।

রাসেল মোহাম্মদ নামের আরেক শিক্ষার্থী বলেন, “ছোট ছোট ঘটনায়ও বিশ্ববিদ্যালয় অবরোধ করা হয়। আমাদের কী দোষ? পরীক্ষা দিতে এসে ফিরে যেতে হবে।

এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারকে একাধিকবার ফোন করেও পাওয়া যায়নি। তবে প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভূঁইয়া বলেন, ‘আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি। ছাত্রদের সঙ্গে কথা বলছি।’

এর আগে রোববার (৩১ জুলাই) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শাখা ছাত্রলীগের ৩৭৬ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় কমিটি। এরপরই শুরু হয় বিক্ষোভ শুরু করেন পদবঞ্চিতরা।

প্রসঙ্গত, কমিটি গঠন কে কেন্দ্র করে এ ঘটনার সৃষ্টি হয়েছে এতে সাধারন শিক্ষার্থীর ক্ষতির মুখে পড়ছে বলে জানায়। এমন ঘটনা ঘটতে থাকলে সামনে আরো পরিস্থিতি খারাপ হবে বলে জানায় সাধারন শিক্ষার্থীরা

About Babu

Check Also

হঠাৎ উপজেলা নির্বাচন নিয়ে নতুন সুর বিএনপির

আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে না বলে জানিয়েছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *