Wednesday , February 28 2024
Breaking News
Home / Countrywide / আমরা কি আসলেই সাধু, নাকি ভেতরে ভেতরে অন্যকিছু: সিইসি

আমরা কি আসলেই সাধু, নাকি ভেতরে ভেতরে অন্যকিছু: সিইসি

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) ওপর আস্থা রাখতে রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। তিনি বলেন, আমাদের বিশ্বাস করুন। বিশ্বাস করার সময় চোখ বন্ধ করে রাখবেন না। সবাইকেই সতর্ক থাকতে হবে। আমরা কি আসলেই সৎ নাকি অসৎ, সেটা আপনাদের খেয়াল রাখতে হবে। আপনি যদি সেই জিনিসটি পর্যবেক্ষণ না করেন তবে আপনি আপনার দায়িত্ব পালন করেননি এমনটাই জানিয়েছেন সিইসি।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, আমরা আসলেই সাধু নাকি ভিতরে অসৎ সেটা মাথায় রাখতে হবে। মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) নির্বাচন ভবনে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সঙ্গে সংলাপে বসে তিনি এ মন্তব্য করেন। সিইসি বলেন, আমাদের বিশ্বাস করুন। বিশ্বাস করার সময় চোখ বন্ধ করবেন না। আমাদের মাথায় রাখতে হবে, আমরা আসলেই সাধু কিনা, নাকি ভিতরে অসৎ। সেদিকে খেয়াল না রাখলে দায়িত্ব পালন হবে না। নির্বাচন হবে নির্বাচনী আইন অনুযায়ী। এটা সময় হবে. ভোটাররা যাবে, ভোট দেবে। আমরা আমাদের সর্বশক্তি দিয়ে দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করব। আপনিও কিছু দায়িত্ব নেবেন। অর্থ শক্তি, পেশী শক্তি মোকাবেলা এবং ভোটকেন্দ্রে শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য আরও দায়িত্ব নিন। আমরা দায়িত্ব ভাগ করে নেব। কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ইভিএম নিয়ে আমরা এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নিইনি। কিন্তু ব্যালট পেপারের সমস্যা হল ব্যালট ছিঁড়ে সিল মারা। বাংলাদেশে অতীতে যে নির্বাচন হয়েছে, ১৯৭৩ সালে নির্বাচন হয়েছে, তারপর সামরিক শাসনের সময় নির্বাচন হয়েছে। সব মানুষই ৯৮ শতাংশ, ৯৫ শতাংশ ভোট দিচ্ছেন। হ্যাঁ-না ভোট। কাগজের সমস্যা, আমি নিজেই বাক্সটি পুড়িয়ে ফেলতে পারি। লাঠি, হকি স্টিক দিয়ে ইভিএম ভাঙতে পারেন, কিন্তু সেখানে ভোট নষ্ট হবে না।

তিনি বলেন, একজন কেন্দ্র দখল করলে একশ ভোট, ৫ জন করলে ৫শ ভোট, জনতা ৫ জন হলে ৫শ ভোট হয়। তখন ভোটের হার অনেক বেশি। তাই বিভিন্ন জায়গায় সমস্যা হচ্ছে। আমি যা বলতে চাচ্ছি তা হল আমরা বিষয়গুলির ভারসাম্য বজায় রাখি এবং যতদূর সম্ভব একটি অর্থবহ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন, যতটা সম্ভব দুর্নীতিমুক্ত। তিনি আরও বলেন, কীভাবে আর্থিক ক্ষমতা সামলাতে হয়, একটি ধারণা দেন। এই টাকা কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায়? কাগজে কলমে পাঁচ লাখ টাকা হলেও প্রকৃত খরচ পাঁচ কোটি টাকা হলে আমি কীভাবে ধরব, আপনি আমাকে কীভাবে ধরবেন। এটা সম্ভব. এ জন্য সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। সিইসি বলেন, আমাদের চর্চা অসংস্কৃতি হয়ে গেছে। টাকা ঢালছে। মাস্তান ভাড়া নিচ্ছে। একজন পেশাদার কি// লার ভাড়া করতে আজকাল খুব বেশি খরচ হয় না। এই অপসংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসার জন্য সবাইকে সামাজিক আন্দোলন করতে হবে। আপনার ক্ষেত্র থাকতে হবে। আপনি আমাদের তথ্য দিলে আমরা আপনাকে সাহায্য করব। আমরা প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি যে এই প্রতিশ্রুতির কিছু মূল্য থাকা উচিত। আমরা যে ডিগবাজি খেতে যাচ্ছি তা নয়। এমনটা হওয়ার কথা নয়।

সিইসি আরও বলেন, আমরা কিছু মনে করি না। আপনি আমাদের কঠোর সমালোচনা করবেন। কিন্তু আমি বলছি এটাকে আমাদের নজরদারিতে রাখতে হবে। কোনো অনিয়ম ধরা পড়লে তা প্রকাশ করা হবে। আমরা কোনোভাবেই পক্ষপাতিত্ব করতে চাই না। আমি কমিশনের পক্ষ থেকে এই প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি। আমাদের চাপে রাখুন। আমরা সজাগ থাকব। আমাদের অবিশ্বাস হতে পারে। কাজের মাধ্যমে সেই অবিশ্বাস দূর করতে হবে। নির্বাচন কমিশনার বেগম রাশেদা সুলতানা বলেন, আমরা অবশ্যই আস্থা অর্জনের চেষ্টা করব। আপনি শুধু জিজ্ঞাসা করুন আমরা বিশ্বাসের জন্য কাজ করছি কি না। আপনি চোখ-কান খোলা রাখুন, দেখুন আমরা কতটা করতে পারি। এটা ভুল হলে, আমাকে জানান। তিনি বলেন, কাগজপত্রে যা দেখছি তাতে মনে হচ্ছে আমরা কিছুই করছি না। মনে হয় যে বৃন্দাবনে যাবে সে রাবণ হবে। আপনি যদি কিছু প্রতিক্রিয়া জানান তাহলে আমরা আরও উত্তেজিত। আমরা কতটা ইতিবাচক, কতটা নেতিবাচক; আমরা যদি বলি তাহলে এটাও বলতে পারি যে আমাদের কাজ মানুষের কাছে পৌঁছেছে। আমাদের কাজ নিজের কাছে বোঝা কঠিন। আমরা বিশ্বাস অর্জনের চেষ্টা করছি না এমন ধারণা পাবেন না।

নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান বলেন, ব্যালট পেপার চুরির মতো ঘটনা রোধে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করব। একজন মা যদি তার ছেলের সঙ্গে ভিডিও কলে কথা বলতে পারেন, তাহলে কি ইভিএমে ভোট দেওয়া যাবে না? ইভিএম মেশিন নিয়ে অবিশ্বাস থাকা উচিত নয়। এর পেছনে যারা আছে, আমি আছি, তারা আমাকে বিশ্বাস করতে পারছে না। আমাদের অভিজ্ঞতা থেকে, আপনি চোখ ধোয়া কি বলেন. আমি জানি, আমি চোখ ধুই কি না আল্লাহই জানেন। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের নেতৃত্বে ১১ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল, প্রধান নির্বাচন কমিশনার, চার নির্বাচন কমিশনার ও ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সংলাপে অংশ নেন।

উল্লেখ্য, আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে নানাবিদ মতামত এবং নানান কৌতুহল দেশের সকল পর্যায়ের মানুষের কাছে। আগামী নির্বাচনে সচ্ছতা কতটুকু হবে সেই নিয়ে অনেকের মনেই অনেক প্রশ্ন। তবে এই নির্বাচনকে সম্পুর্ন নিরপেক্ষ রুপ দিতে যা যা করনীয় তা সিইসি পক্ষ থেকে করা হবে। তবে সবকিছু সিইসির উপরে ছেড়ে না দিয়ে সবাই সার্বিক দিয়ে নজর রাখতে আহ্ববান জানিয়েছেন প্রধান সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল।

 

 

About Syful Islam

Check Also

মার্কিন প্রতিনিধিদলের মাধ্যমে বাংলাদেশকে যেসব বার্তা দিল যুক্তরাষ্ট্র

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর প্রথমবারের মতো ঢাকা সফর করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চপর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *