Sunday , March 3 2024
Home / National / আমি আর হিসাবে গেলাম না, মাঝে মাঝে একটু তাদের তো বলতে দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

আমি আর হিসাবে গেলাম না, মাঝে মাঝে একটু তাদের তো বলতে দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দেশ ও দেশের মানুষের জীবনমান উন্নয়নে রীতিমতো কাজ করে যাচ্ছে বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী সরকার। তবে এরপরও এ সরকারের সমালোচনায় মেতে রয়েছে বিভিন্ন দল। আর এরই জের ধরে এবার সমালোচকদের উদ্দেশ্যে বিশেষ বক্তব্য দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সমালোচকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা নাই নাই, গেল গেল, হায় হায় করে বেড়াচ্ছে, এই হায় হায় পার্টি হায় হায় করতেই থাকুক। মাঝে মাঝে একটু তাদের তো বলতে দিতে হবে। আর আমরা আমাদের কাজ করি, দেশ এগিয়ে যাক। দেশ এগিয়ে যাবে, জনগণের ওপর আমাদের আস্থা আছে। জনগণ আমাদের সঙ্গে আছে।

আজ রোববার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ উদযাপন ও জাতীয় মৎস্য পদক- ২০২২ প্রদান অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন।

এ সময় মৎস্য খাতে আওয়ামী লীগ সরকারের নেওয়া নানা উদ্যোগ ও সফলতার চিত্র তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, সরকার গঠন করে গবেষণাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি। তখন হয়তো দু-একটি বিষয়ে গবেষণা হয়েছে। আমরা ১৯৯৬ সালে বাগেরহাটে চিংড়ি গবেষণা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করি। এটি ছিল জাতির পিতার উদ্যোগে, পরে চাঁদপুরে ইলিশ গবেষণা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠিত হয়। সেই সঙ্গে আমাদের দেশীয় মাছ, যা আমাদের নদী, খাল-বিল, হ্রদে প্রাকৃতিকভাবে পাওয়া গেলেও অনেক মাছ বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এই মাছগুলিকে খুঁজে বের করা এবং গবেষণা করা…আমরা সাধারণত নিজেরাই যে মাছগুলি নিয়ে থাকি সেগুলি নিয়ে আমরা আরও বিস্তৃত গবেষণা করি৷ বাংলাদেশ আজ তার সাফল্য পাচ্ছে। যার কারণে আমরা স্বাদু পানির মাছ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছি। দেশীয় প্রজাতি, অনেক বিলুপ্ত প্রজাতির মাছ এখন গবেষণার মাধ্যমে ফিরে আসছে। যা আমাদের পুষ্টির চাহিদা পূরণ করছে, এবং ব্যাপক হারে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা চাই আমাদের দেশ এগিয়ে যাক। প্রথমে ছিল খাদ্য নিরাপত্তা। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পর আজ আমরা পুষ্টি নিরাপত্তায় আসি। আমরা পুষ্টি নিরাপত্তার দিকে বিশেষ নজর দিচ্ছি। সেই পুষ্টি আসবে মাছ, ডিম, দুধ ও মাংসের মাধ্যমে। আমরা কেবল নিজেদের চাহিদা পূরণ করবো না, আমরা সেগুলিকে বিদেশে পাঠাতে পারি। আমরা এটা করতে পারবো, এটা আমরা বিশ্বাস করি। আমাদের এত বৈচিত্র্য রয়েছে মাছে; সেগুলো শুধু প্রক্রিয়াজাত করে; শুধু আমরা নই, আমাদের প্রবাসী বাঙালিরা যারা নিজ দেশের মাছ খেতে চায়, তাদেরও সুযোগ দিতে পারি।

তিনি বলেন, আমি আর হিসাবে গেলাম না। যারা নাই নাই, গেল গেল, হায় হায় করে বেড়াচ্ছে, এই হায় হায় পার্টি হায় হায় করতেই থাকুক। আর আমরা আমাদের কাজ করি, দেশ এগিয়ে যাক। দেশ এগিয়ে যাবে, জনগণের ওপর আমাদের আস্থা আছে। জনগণ আমাদের সঙ্গে আছে। জাতির পিতা বলেছেন, কেউ দাবায়া রাখতে পারবা না। কেউ দাবায়া রাখতে পারবে না।

দেশে বাসস্থান ও ভূমিহীন মানুষের জন্য থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশে একজন মানুষও বাসস্থানহীন থাকবে বলে আগেই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি। আর সেই প্রতিশ্রুতি অনুযায়ি কাজ করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।

About Rasel Khalifa

Check Also

বাবা সৌদি প্রবাসী, ১৯ বছর বয়সে প্রতারণার হাতেখড়ি তার

নওশীন তাবাসসুম। বয়স 22 বছর। পরিবারটি চট্টগ্রামের কর্ণফুলীর হালিশহরে থাকে। তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত একটি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *