Wednesday , February 28 2024
Breaking News
Home / Countrywide / এবার অনন্ত জলিল আর থামবেন বলে মনে হয় না

এবার অনন্ত জলিল আর থামবেন বলে মনে হয় না

অনন্ত জলিল হলো বাংলাদেশের একজন বিশিষ্ট গার্মেন্টস ব্যবসায়ী। তিনি গার্মেন্টস ব্যবসায় বেশ সফলতা অর্জন করেছেন। গার্মেন্টস ব্যবসার পাশাপাশি অনন্ত জলিল আরো একটি নামে অনেক সুপরিচিত বাংলাদেশে আর সেইটা হলো তিনি হলেন বাংলাদেশেডর চলচ্চিত্রের একজন খুব জনপ্রিয় নায়ক। সম্প্রতি জানা গেছে অনন্ত জলিলকে নিয়ে নানারকম কথা হলেও তিনি এবার থামবেন বলে মনে হয়না।

আমি জানি না এটা কিছু লোকের সমালোচনার কারণে হয়েছে কি না, আমি যখন দ্য ডে সিনেমাটি দেখতে গিয়েছিলাম তখন আমার কোনো প্রত্যাশা ছিল না।

৭টায় শো শুরু হলো, ৭টা ৫ মিনিটে হলে ঢুকলাম! শুরুতে জলিল সাহেব ইস্তাম্বুলে মারামারি শুরু করেন! আগে কিছু ছিল কিনা জানি না! সবার আগে চোখ গেল নায়কের আলগা চুলের দিকে। বাংলা সিনেমায় যথারীতি, এখানেও উইগ মানায় না। হয়তো ফিট থাকার চেয়ে তার গোপন অপারেশনটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল, তাই তার ছদ্মবেশ!

আমি জানি না এটা পুলিশের কারণে হয়েছে কি না, পুলিশের সাথে সম্পর্কিত ছোটখাটো ভুলগুলো খুব লক্ষণীয়। এই ছবিতে অনন্ত জলিল ‘দ্য এজে’কে বারবার ওয়ারলেসে এজে বলে ডাকা হয়েছিল। সেটে কাউকে নাম ধরে ডাকা হয় না, অফিসারের কল সাইন থাকে। আর SWAT টিম ও তার নেতাকে সাধারণ ডাকাত ধরতে যেতে হয় না, স্থানীয় পুলিশ কাজ করে। ডাকাত ধরতে সোয়াট অফিসারকে বাংলাদেশ পুলিশ দেখানো কাজ নয়, কিন্তু তারা ভারী অস্ত্রে সজ্জিত বলে এমন দৃশ্যের একটা যৌক্তিকতা আনা যায়!
গড় দর্শক এটি বুঝতে পারবে না তাই আমি ধরে নিই যে গড় দর্শকের কাছে এই অসঙ্গতি বড় ব্যাপার নয়। কমিশনার হিসেবে মিশা সওদাগরকে তার বাম পাশের চেয়ারে প্রথমে একজন এসপি পদমর্যাদার এবং তার পরে একজন ডিআইজি পদমর্যাদার কর্মকর্তা দেখানো হয়েছে, যা ভুল। সাধারণ দর্শক এটা বুঝবে না কিন্তু এখানে বরাবরের মতো গবেষণা করা হয় না! ইন্টারপোল দেশের বাইরে অভিযানের সাথে সম্পর্কিত যা আকর্ষণীয়।

নায়কের উচ্চারণ বিষয়ে আসা যাক, প্রয়াণ উচ্চারণ নায়ক যদি না-ই করতে পারে সেক্ষেত্রে তাকে সুবিধা দিতে ‘প্রয়াণ’ পরিবর্তে ‘প্রয়াণ’ তো বলানো যায়। প্রয়াণ না বললে মহাভারত কি অশুদ্ধ? চ, ছ-এর উচ্চারণে নায়কের জটিলতা রয়েছে। থামুন (নায়ককে বারবার ইস্টপ বলে থামুন)! গাড়ি থামানোর ক্ষেত্রে তাকে থামাতে বলা যেত! নায়ক অনেক লেজ নামাচ্ছে! টেল ড্রপ এমন একটি সমস্যা যেখানে একটি শব্দের শেষ শব্দাংশটি উচ্চারণের আগে হারিয়ে যায়। যাই হোক, সিনেমার একজন সাধারণ দর্শক হিসেবে কথা বলা যাক!

অনন্ত জলিলের আগের কোনো সিনেমা দেখিনি। বিভিন্ন মুভির ছোট ছোট ক্লিপ দেখেছেন, হাসছেন কারণ মজার অংশের ক্লিপগুলো কেটে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা হয়েছে। এই ছবিটি মূলত অনন্ত জলিল ওরফে এ জে এর ছবি। বর্ষাকে রাখা হয়েছে নিয়ম রক্ষার জন্য। বিরতির পর কঠিন মুহুর্তে এবং আবার শেষ মুহুর্তে তাকে পরিচয় করিয়ে দিয়ে তার চরিত্রকে জাস্টিফাই করার চেষ্টা করা হয়।

অনন্ত জলিলের কিছু জায়গায় উচ্চারণে স্বল্পতা, ইংরেজিতে দু-তিনটি ভুল বাক্য, কিছু জায়গায় মুখের অভিব্যক্তিকে অজুহাত দেখিয়ে এই ছবিতে পরিণত হওয়ার চেষ্টা করেছেন অনন্ত। অ্যাকশন ঘরানার এই সিনেমায় তার মারপ্যাঁচ ছিল বেশ। ছবির দ্বিতীয়ার্ধে কিছু জায়গায় নায়কের সংলাপ ছোঁড়া এবং রাগান্বিত মুখের অভিব্যক্তি আমাকে মুগ্ধ করেছে। আমি জানি না এই মুগ্ধতা প্রত্যাশা ছাড়া যাওয়ার কারণে কিনা। তবে এটা বলতেই হবে যে তার চেষ্টা ছিল খুবই স্বাভাবিক আচরণ করার।

বর্ষা ছবিতে তার এন্ট্রি শটে, নায়িকা একটি চ্যানেল টপ পরা স্কুলে মারামারি থেকে একটি বাচ্চাকে বাঁচায়, হঠাৎ করে কীভাবে অযথা এড়ানো যায় সে সম্পর্কে একটি পাঠ দিয়ে শিশুটির মাকে অবাক করে দেয়। পরিচালক কী বুঝতে চান, আমি আসলে বুঝতে পারিনি! বর্ষা শুধু পুলিশই নয়, একজন আদর্শ স্ত্রীও, মানে কি? তিনি নিজে পুলিশ অফিসার হয়েও এই পুরো ছবিতে নিজের বিশ্বাসযোগ্যতা তুলে ধরতে পারেননি! আমার মনে হয় দুটি গানে তার হাস্যোজ্জ্বল মুখ ও জামাকাপড় দেখানোই ছিল তার অর্জন! একজন পুলিশ সদস্য অপারেশনে গিয়ে অন্য নারীদের মত বললে পুলিশের চরিত্র বিশ্বাসযোগ্যতা হারাবে কি হবে বুঝতে পারছি না! তবে বর্ষা শেষের খলনায়কের সঙ্গে নায়িকার সংলাপে ভালো করেছেন, এই জায়গায় তার অভিনয় আমার ভালো লেগেছে। আরও উন্নতির যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে।

এই ছবির শেষ গানটা যদি ছবির কোথাও যথাযথভাবে সেট করা যেত তাহলে ভালো হতো। এই গানটির দৃশ্যায়ন দেখার মতো ছিল কিন্তু পরিচালক অকারণে ছবির শেষে এই গানটি সেট করে আমাদের আবার অবাক করে দিয়েছেন। গানটা দেখে মনে হলো সিনেমার শেষ, আবার গান কেন?

সিনেমার শেষ দৃশ্যে নায়ক যখন তার নায়িকা, চলচ্চিত্রের স্ত্রী এবং বাস্তব জীবনের স্ত্রীকে আই লাভ ইউ বলে, তখন এটি বিশ্বাসযোগ্যতা হারায়, কারণ একটি করুণ দৃশ্যে এই প্রেমের প্রকাশ দর্শকদের হাসায়। জানি না ভালোবাসার কথা বলা বা করায় ফাঁক ছিল কিনা! কিন্তু এটি দর্শকদের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে ব্যর্থ হয়েছে।

এই ছবির লোকেশন, কোরিওগ্রাফি, গান ও মাজদি ও খলনায়ক খালিদের অভিনয় ভালো ছিল। আমার নিজের সীমাবদ্ধতার কারণে অন্যান্য প্রযুক্তিগত সমস্যা সম্পর্কে কথা বলতে অস্বীকার! তবে অনন্ত জলিলের প্রচেষ্টা ছিল দেখার মতো, এটা মানতেই হবে। অনেকেই তার ভালো কাজগুলোকে ছবির বিষয়বস্তুর সঙ্গে যুক্ত করার চেষ্টা করেছেন। দুটি ভিন্ন জায়গা মাথায় রাখুন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে অভিনয় করছেন এবং এখনও দর্শকরা তার প্রথম দিনের মতো তার ত্রুটিগুলি নিয়ে কথা বলবেন। তিনি অনেক উন্নত প্রযুক্তির প্রচলন করেছেন বা ঘটাচ্ছেন, এটা বলা ঠিক নয়। যদিও উন্নতি লক্ষণীয়, তিনি অভিনয় করতে চাইলে অন্য কারো দ্বারা ডাবিং করাতে পারেন। অথবা আপনি আরও ভাল কোথাও নিজেকে অনুশীলন করতে পারেন।

অনেকে বলেছেন যে তারা ছবির প্রিমাইজ বুঝতে পারেননি, আমার মনে হয় না। নায়ক একটি নির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন এবং তিনি শেষ পর্যন্ত সেই উদ্দেশ্যটি পূরণ করেন। কিন্তু এত দক্ষ অফিসার মাত্র একজন পুলিশ নিয়ে আফগানিস্তানের মতো জায়গায় গিয়েছিলেন খালিদের মতো এত বড় অপরাধীকে ধরতে, এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না! চলচ্চিত্রে এমন কিছু ঘাটতি ছিল। তাদের একমাত্র সন্তান এই ছবিতে চরমভাবে অবহেলিত। স্বামী-স্ত্রী দুজনেই তাদের পেশায় ব্যস্ত থাকায় তারা এটা দেখিয়েছেন কিনা জানি না।

এই ছবির শেষ লড়াইটা অকারণে দীর্ঘ! ইরানী পুলিশ সদস্যের মৃত্যুতে অনন্তকে কাঁদতে দেখে প্রথমে আমি খুব অবাক হয়েছিলাম, কিন্তু কিছুক্ষণ পরে বোঝা গেল কেন তিনি কাঁদছেন। এটা ভালোবাসি! এই সংযোগগুলি গুরুত্বপূর্ণ যা কিছু জায়গায় স্পষ্ট নয়, তবুও লোকেরা এই ফিল্মটি দেখতে যাচ্ছে। আমাদের সামনের ৪টি সারি খালি এবং বাকিগুলি পূর্ণ।

আসুন হাসি, বিনোদন করা যাক, মানুষ যাই হোক না কেন. আমি বিশ্বাস করি মানুষ অতীতে তাকে নিয়ে হাসাহাসি করার চেষ্টা করেছে কিন্তু এই ছবিতে সুযোগ কম। তার মানে সে অনেক পাশ করেছে।

আমার কাছে এই চলচ্চিত্রের দৈর্ঘ্য কোনোভাবেই ২ ঘণ্টা ৪০ মিনিটের হওয়া যথার্থ মনে হয়নি! এটি ২ ঘণ্টা ২০ মিনিটে শেষ হলে টানটান বিষয়টা টিকে থাকতো। অযথাই ২০-২৫ মিনিট দীর্ঘ করা হয়েছে।

সব মিলিয়ে আমি, আমার পরিবার এই সিনেমাটি দেখে বেশ বিনোদন পেয়েছি। এই ছবির শুটিং হয়েছে এমন দুর্দান্ত লোকেশনে আমরা খুব কম বাংলাদেশি ছবি দেখেছি!
অনন্ত জলিলের অভিনয়, পরিচালনা, প্রযোজনা নিয়ে নানাভাবে কথা বলা হলেও তিনি থামবেন বলে মনে হয় না! উন্মুক্ত মঞ্চের কারণে বিভিন্ন খাবার হজম করতে হয়। অনন্ত জলিল অতি সুস্বাদু খাবার পরিবেশন করেন না কিন্তু তালিকায় দেওয়া খাবার অখাদ্য নয়! তিনি চলচ্চিত্রে ব্যবসার চেয়ে নতুন বিষয় প্রদর্শনে বেশি আগ্রহী বলে মনে হয়। তাই তার সমালোচনা সঠিকভাবে হলে হয়তো দুই পক্ষের মধ্যে সেতুবন্ধন ঠিকঠাক রচিত হবে।

প্রসঙ্গত, অনন্ত জলিল ও তার স্ত্রী বর্ষা একের পর এক বাংলার মানুষকে উপহার দিয়ে যাচ্ছেন সুপারহিট সিনেমা। তাদের সিনেমা দেখার জন্য সিনেমা হলে মানুষের ভিড় উপছে পড়ছে। জানা গেছে টিকিট পাওয়া যাচ্ছেনা। সম্প্রতি সিনেমাতে শতকোটি টাকা বাজেট করেছেন এমনটাই জানা গেছে।

About Shafique Hasan

Check Also

মার্কিন প্রতিনিধিদলের মাধ্যমে বাংলাদেশকে যেসব বার্তা দিল যুক্তরাষ্ট্র

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর প্রথমবারের মতো ঢাকা সফর করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চপর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *