Wednesday , April 24 2024
Breaking News
Home / Countrywide / সামাজিক মাধ্যমে আলোচনায় দৈনিক ইন্তেকাল, জানা গেল বিস্তারিত

সামাজিক মাধ্যমে আলোচনায় দৈনিক ইন্তেকাল, জানা গেল বিস্তারিত

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ‘দৈনিক ইন্তেকাল’ নামের প্রেসের কার্ড নিয়ে নানা প্রকার রহস্যের জন্ম দিয়েছে। কার্ডটিতে একজন ব্যক্তির ছবি দেওয়া আছে আর তার নিচে লেখা আবুল মিয়া। সবার নিচে লেখা আছে সাংবাদিক। প্রেসের এই কার্ডটি দেখে গণমাধ্যমে হাসি ঠাট্টার রোল পড়ে যায়। এমন অদ্ভুত নামের প্রেসের কার্ড দেখে রীতিমতো সবাই অবাক। কার্ডটি নিয়ে বিভিন্ন ব্যক্তি তাদের মন্তব্য শেয়ার করেন সামাজিক যোগাযোগসহ বিভিন্ন মাধ্যমে।

শনিবার বিকেলে ( afternoon ) অনেকেই ছবিটি সামাজিক মাধ্যমে পোস্ট করে তা নিয়ে ট্রোলড হয়েছেন। কেউ কেউ কড়া সমালোচনাও করেন। মিডিয়ার নাম কেন? কেন তারা মিডিয়া নিয়ে রসিকতা করছেন- এসব প্রশ্ন তোলেন অনেকেই।

মিডিয়া কার্ড নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় তোলপাড় চললেও জানা গেল, এমন কোনও মিডিয়া নেই। কার্ডটি কাল্পনিক।

জানা গেছে, কুয়াকাটা মাল্টিমিডিয়া নামের একটি ইউ টিউব চ্যানেলে প্রচারের জন্য কনটেন্ট তৈরির একটি অংশ এই প্রেস কার্ড। শুটিং চলাকালে কেউ কার্ডের ছবি তুলে ফেস বুকে পোস্ট করে ভাইরাল করে। ইস্যু শুধু তাদের প্রচার কৌশল।

ভুঁইফোড় মিডিয়া ও তথাকথিত সাংবাদিকদের নির্দেশে প্রেস কার্ড ছাপানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

কুয়াকাটা মাল্টিমিডিয়ার লেখক ও কর্ণধার শুভক হোসেন কবির ( Shubhak Hossain Kabir ) ফেস”বুক লাইভে এসে বিষয়টির ব্যাখ্যা দেন। আজকাল মানুষ তাদের কর্মকাণ্ডে সাংবাদিকতার মতো পবিত্র ও মহান পেশাকে নিন্দা করছে। শিক্ষা ও যোগ্যতা ছাড়াই অন্যের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে ভুয়া সাংবাদিকরা। সাধারণ মানুষের কাছে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশকারী গণমাধ্যম ও যোগ্য সাংবাদিকদের রোষানলে পড়তে হয়। তাই এমন চরিত্রকে তুলে ধরে সমাজের চোখ খোলার আয়োজন করছি। সমাজের প্রকৃত সাংবাদিকদের সম্মান ও মর্যাদা রক্ষা করে বিষয়বস্তু তৈরি করা হয়েছে।

”দৈনিক ইন্তেকাল” নামের একটি কাল্পনিক পত্রিকার সাংবাদিক আবুল মিয়া ঠিক তেমনই।

শুভ হোসেন কবির, যিনি আমাদের কন্টেন্টে ”দৈনিক ইন্তেকাল” এর পরিচয় দিচ্ছেন, ইউটিউব কন্টেন্টের চরিত্রে ভুয়া সাংবাদিকদের দৌরাত্ম্যের বিষয়টি তুলে ধরেছেন। সমাজের অনেকেই ভয় দেখিয়ে চাঁদাবাজি করতো; কিন্তু এক পর্যায়ে তাকে আইনের আওতায় আসতে হবে। একই সঙ্গে অপরাধ অনুযায়ী শাস্তিও দেওয়া হয়।

সাদ্দামের নাম আবুল মিয়া। তিনি বলেন, আমরা মূলধারার সাংবাদিকদের সমাজের আয়না হিসেবে দেখি। গল্পে সত্যিকারের কলম যো”দ্ধাদের সম্মান উচ্চ করে রেখেছি। এই গল্পে আবুল মিয়া হলুদ সাংবাদিক। এটা একটা গল্প মাত্র। কার্ড দেখে বিভ্রান্ত হওয়ার কিছু নেই। বাস্তবে এমন কোনো পত্রিকা নেই।

প্রসঙ্গত, সাংবাদিকতা পেশায় যারা নিয়োজিত থাকেন তারা দেশের গুরুত্বপূর্ন দার্য়িত্ব পালন করে থাকেন। নিজ দেশসহ সকল দেশের বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে তথ্য সকলের নিকট উপস্থাপন করে থাকেন। বর্তমান সময়ে সাংবাদিকরা নিজেদেরকে নানা রকম বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছেন যা সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ সহ কারো কাম্য নয়। সাংবাদিক পেশা এমন একটি মহান পেশা এর সাথে যারা সংশ্লিষ্ট তাদের পেশার প্রতি সন্মান দেখিয়ে সকল বিতর্কের উর্ধ্বে থেকে কাজ করতে হবে।

About bisso Jit

Check Also

অবন্তিকার পর এবার একই পথে হাঁটল মীম

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আ/ত্মহত্যা করেছে। শিক্ষার্থীর নাম শারভীন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *