Wednesday , April 24 2024
Breaking News
Home / Countrywide / প্রধান শিক্ষক সংসার পেতে বসেছেন ছাত্রী মিলনায়তনে

প্রধান শিক্ষক সংসার পেতে বসেছেন ছাত্রী মিলনায়তনে

সকল ছাত্র ছাত্রীর মাঝে শিক্ষার আলো ছড়ীয়ে দেয়ার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো একটি অন্যতম মাধ্যম। বর্তমান সরকার ( Government ) ছাত্র ছাত্রীর শিক্ষার মান বৃদ্ধির জন্য নানা ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন। পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার্থীদের জন্য অনেক সুযোগ সুবিধাও চালু করেছেন। লেখাপড়ার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের অবসর সময় কাটানো বা ছাত্রীদের একান্ত গো’পনীয়তার কথা চিন্তা করে সরকার ( Government ) মিলনায়তন কক্ষ তৈরি করেছেন। তবে সেই কক্ষের অপব্যবহার করছেন মৌলভীবাজারের জুড়ী ( Moulvibazar pair ) উপজেলার এক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। এ নিয়ে অভিভাবক মহলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

স্থানীয় অভিভাবক সূত্রে জানা যায়, জুড়ী উপজেলার গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নের শিলুয়া উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের ( Shilua High School College ) প্রধান শিক্ষক সেলিম মিয়া ( Selim Mia ) বাড়ী স্কুল সংলগ্ন উপজেলায় হলেও ছাত্রী মিলনায়তনে বসবাস করছেন। এতে বিপাকে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা। বিরতির সময় ছেলেদের সঙ্গে ক্লাসে বসতে হয়।

গত কয়েক বছর ধরে ওই শিক্ষক বিদ্যালয়ের ওই কক্ষটিকে আবাসস্থল হিসেবে ব্যবহার করছেন। এতে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার পরিবেশ বিঘ্নিত হচ্ছে। শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেলেও প্রধান শিক্ষক শুনছেন না।

এ ছাড়া সম্প্রতি শিলুয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে অবৈধ শিক্ষক নিয়োগের অভিযোগের তদন্ত করেন জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা[১] মোহাম্মদ ফজলুর রহমান ( Mohammad Fazlur Rahman )। তদন্তকালে অভিভাবকরা বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে প্রধান শিক্ষক থাকার বিষয়টি তুলে ধরেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষার্থীরা জানান, শিলুয়া উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ সেলিম মিয়া ( Selim Mia ) ২০১৮ সাল ( Year ) থেকে ছাত্র মিলনায়তনের একটি অংশ দখল করে তার দুই সন্তানকে নিয়ে বসবাস করছেন। অন্য অংশে আরও দুজন শিক্ষক রয়েছেন। ফলে দুপুরের খাবারের বিরতিতে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে শ্রেণিকক্ষে সময় কাটাতে হয়। বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন অভিভাবকরাও। তারা ছাত্র অডিটোরিয়াম খালি করে ছাত্রীদের জন্য খুলে দেওয়ার দাবি জানান।

অভিভাবক নীলু দাস ( Neelu Das ) এক সংবাদ মাধ্যমে জানায়, এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এতে বিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে।

অভিভাবক মাখন নায়েক এক সংবাদ মাধ্যমে জানায়, ওই কক্ষে প্রধান শিক্ষক সংশার পেতে বসেছেন। এখন দু-একদিন নয়, কয়েক বছর ধরে স্কুলের এই কক্ষে তিনি বসবাস করছেন, তার বাড়ি পাশের উপজেলায়। তার ঘরে একটি বিছানা, সোফা, আলনাসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র রয়েছে।

এ বিষয়ে সাবেক ইউপি সদস্য দিলীপ ( Dilip ) ত্রিপাঠী এক সংবাদ মাধ্যমে জানায়, বিদ্যালয়ের পাশেই উপজেলায় প্রধান শিক্ষকের বাড়ি। কিন্তু প্রভাব বিস্তার করে বিদ্যালয়ের একটি কক্ষ দখল করে বসবাস করছেন। এতে শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে।

প্রধান শিক্ষক সেলিম মিয়া ( Selim Mia )র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিদ্যালয় ও কলেজ পরিচালনা কমিটির সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে ছাত্র মিলনায়তনটি পরিত্যক্ত হওয়ায় তিনি ও অপর দুই শিক্ষক জনপ্রতি এক হাজার টাকা ভাড়া নিয়ে অস্থায়ীভাবে বসবাস করছেন।

প্রতিটি শ্রেণীকক্ষে একটি ছাত্র অডিটোরিয়াম রয়েছে। তিনি আরও দাবি করেন যে শিক্ষার্থীদের বসবাস করতে কোন অসুবিধা হচ্ছে না।

এ বিষয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফজলুর রহমান ( Mohammad Fazlur Rahman ) এক সংবাদ মাধ্যমে জানায়, কলেজের অডিটোরিয়ামে শিক্ষকদের থাকার কোনো নিয়ম নেই। আমরা তদন্ত করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি, ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য , অনেক অভিভাবক জানায়, মেয়েদের অনেক গোপনীয়তা আছে, মিলনায়তন কক্ষ ব্যবহার করে তারা নিজেদের সমস্যাগুলো সমাধান করতে পারে যেটা শ্রেণি কক্ষে ছাত্রদের সামনে করা সম্ভব হয় না। প্রধান শিক্ষকের এমন কর্মকাণ্ডে শিক্ষার্থীরাসহ অভিভাবকদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা যায় । এ বিষয়ে সুষ্ঠু সমাধানের দাবি জানিয়েছেন শিক্ষর্থীরা।

About Nasimul Islam

Check Also

অবন্তিকার পর এবার একই পথে হাঁটল মীম

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আ/ত্মহত্যা করেছে। শিক্ষার্থীর নাম শারভীন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *