Wednesday , April 17 2024
Breaking News
Home / Countrywide / জনপ্রতিধি হয়েও পত্রিকা বিক্রি করে সংসার চালান চম্পা

জনপ্রতিধি হয়েও পত্রিকা বিক্রি করে সংসার চালান চম্পা

সংবাদপত্রের সাথে আমার আত্মার সম্পর্ক আছে, এমনটিই বললেন পত্রিকা বিক্রি করেই তার জীবন ধারন করা জান্নাতুল সরকার ( Jannatul Sarkar ) চম্পা। প্রতিদিন সকালে ( morning ) মানুষের বাসাসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে যেয়ে পত্রিকা পৌঁছে দেন তিনি। তিনি প্রায় ছয় কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে প্রত্যন্ত গ্রাম হতে উপজেলা সদরে এসে এজেন্টের নিকট থেকে বিভিন্ন জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকা সংগ্রহ করে নিয়ে গ্রাহকের নিকট পৌঁছে দেন।

ইউপি সদস্য হয়েছি তাতে কি হয়েছে আমি পত্রিকা বিক্রি করা চালিয়ে যাব, কারন পত্রিকা বিক্রি করা আমার আত্মার সাথে জড়িত কাজ। এক প্রতিক্রিয়ায় পাবনার চাটমোহর ( Chatmohar Pabna ) উপজেলার পার্শ্বডাঙ্গা ইউনিয়নের সংরক্ষিত ইউপি সদস্য জান্নাতুল সরকার ( Jannatul Sarkar ) চম্পা তার মতামত ব্যক্ত করেন।

তিনি ২৮ নভেম্বর ( November ) তৃতীয় দফায় ইউপি নির্বাচনে সংরক্ষিত ২ নং ওয়ার্ডে বই প্রতীক নিয়ে ২ হাজার ২৭৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। এভাবে প্রতিদিন খবরের কাগজ নিয়ে ছুটে চলা চম্পা এবার খবরের শিরোনামে।

পার্শ্বডাঙ্গা ইউনিয়নের মল্লিকবাইন গ্রামের ইসহাক আলীর ( Isaac Ali ) মেয়ে জান্নাতুল সরকার ( Jannatul Sarkar ) চম্পা বলেন, কোনো কাজই ছোট নয়। হাইস্কুল পাশ করেও চাকরি পাইনি। আমি নির্ভরশীল হতে চাইনি। তাই লোকলজ্জার ভয়কে উপেক্ষা করে কয়েক বছর আগে সাইকেলে করে পত্রিকা বিক্রি করতে বের হয়েছিলাম। এটাই আমার পেশা হয়ে গেছে। চাকরির বয়স চলে গেছে। চাকরি পাইনি, কাজ করছি। আমি কষ্ট পাচ্ছি, কিন্তু জীবন যুদ্ধে হারিনি। পত্রিকা আমাকে পরিচয় করিয়ে দিল। এবারও আমি সব সময় চেষ্টা করবো জনগণ আমাকে যে দায়িত্ব দিয়েছে, তারা আমাকে ভালোবাসবে এবং তাদের মূল্যবান ভোটে বিজয়ী করবে। তবে আমি পত্রিকা বিক্রি বন্ধ করব না।

চতুহর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফিরোজা পারভীন বলেন, চম্পা একজন আত্মবিশ্বাসী মেয়ে। তিনি সাইকেল চালাতেন এবং পত্রিকা বিক্রি করতেন, কিন্তু একটি প্রতিষ্ঠান তাকে একটি অটোবাইক কিনে দেয়। ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত তিনি অটোবাইক চালিয়ে চম্পা পৌর শহর ও আশপাশের বাজারের মানুষের ঘরে ঘরে খবরের কাগজ পৌঁছে দেন। প্রতিদিন প্রায় সাত কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে উপজেলা সদরে খবরের কাগজ বিক্রি করেন। বিকেলে অফিস, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, দোকানপাট, পৌরসভাসহ বিভিন্ন এলাকার পাঠকদের হাতে পত্রিকা তুলে দিয়ে বাড়ি ফিরেন তিনি।

প্রসঙ্গত, কোনো পেশা যে ছোট না সংবাদপত্র বিক্রেতা চম্পা সেটা আবারও প্রমান করলেন। পেশাজীবিসহ সকল মানুষের কাছে তিনি একটি দৃষ্টান্ত। তিনি ইউপি সদস্য হয়েও তার শর্তে তিনি তার পেশাকে সন্মান দেখিয়েছেন। এমনি হওয়া উচিত এমনটাই প্রত্যশা সাধারন মানুষের। চম্পার মতন সংগ্রামী মানুষ গড়ে উঠাকে বাংলাদেশের প্রতিটি প্রান্তের মানুষের এটাই চাওয়া ।

 

 

About bisso Jit

Check Also

অবন্তিকার পর এবার একই পথে হাঁটল মীম

পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী গলায় ফাঁস দিয়ে আ/ত্মহত্যা করেছে। শিক্ষার্থীর নাম শারভীন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *