সাকিব আল হাসান ২৮ অক্টোবর ২০১৯ পর্যন্ত বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের টেস্ট ও টি২০ আন্তর্জাতিক সংস্করণে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন। তাকে বাংলাদেশের হয়ে খেলা সর্বশ্রেষ্ঠ ক্রিকেটার হিসেবে বিবেচিত সাকিবকে বিশ্বের অন্যতম সেরা অল-রাউন্ডার বলে গণ্য করা হয়। ১০ বছর ধরে শীর্ষ অল-রাউন্ডারের রেকর্ডের অধিকারী সাকিব এখনো একদিনের আন্তর্জাতিক ও টেস্ট ফরম্যাটে সর্বোচ্চ র‍্যাংকিং ধরে রেখেছেন।ফিক্সিং করেননি। কিন্তু জুয়াড়ির দেয়া প্রস্তাবের কথা আইসিসিকে না জানানোর অপরাধে নিষিদ্ধ সাকিব আল হাসান। এক বছরের নিষেধাজ্ঞা শেষে আবার ক্রিকেটে ফিরে আসতে পারবেন তিনি। এই এক বছর সময়ে ক্রিকেটীয় কোনো কর্মকাণ্ডেই জড়াতে পারবেন না সাকিব।একটি ছোট্ট ভুলের জন্য অনেক বড় মূল্য চুকাতে হচ্ছে সাকিবকে।
সাকিবের ওপর এই নিষেধাজ্ঞার প্রভাব পড়েছে আইসিসি র‍্যাংকিংয়েও। বাংলাদেশ-ভারত সিরিজ শেষে আইসিসি কর্তৃক প্রকাশিত টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে দেখা যাচ্ছে, কোথাও সাকিব আল হাসানের নাম রাখেনি ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display

এবারের আগে প্রকাশি টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে সাকিব আল হাসান ছিলেন দ্বিতীয় স্থানে। তার পয়েন্ট ছিল ৩৫৫। বোলিংয়ে তিনি ছিলেন ৯ নম্বর অবস্থানে এবং ব্যাটিংয়ে ছিলেন ৩২ নম্বর স্থানে।
কিন্তু ভারত-বাংলাদেশ, নিউজিল্যান্ড-ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তান সিরিজ শেষে প্রকাশি টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে দেখা যাচ্ছে এই ফরম্যাটের তিন বিভাগের কোথাও সাকিবের নাম নেই। অলরাউন্ডার র‍্যাংকিংয়ে ৩৩৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে উঠে গেছে আফগানিস্তানের অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবি।
সাকিব ভারত সিরিজ খেলতে পারলে শীর্ষেই থাকতে পারতেন, এতে কোনো সন্দেহ নেই। শুধু শীর্ষস্থান কিংবা দ্বিতীয়তে নয়, অলরাউন্ডারদের তালিকায় কোথাও তার নাম নেই। তবে এই তালিকায় চার নম্বরে উঠে এসেছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নাম। তার পয়েন্ট ২২৫।
শুধু অলরাউন্ডারই নয়, বোলার কিংবা ব্যাটসম্যানদের তালিকায়ও নাম নেই সাকিবের। যথারীতি রশিদ খান বোলিংয়ের শীর্ষে এবং বাবর আজম ব্যাটসম্যানদের শীর্ষে রয়েছেন।
বাংলাদেশের নাঈম শেখ ৩৮ নম্বর স্থানে রয়েছেন যৌথভাবে ইংল্যান্ডের জনি বেয়ারেস্টর সঙ্গে। র‍্যাংকিংয়ে প্রথমবারেরমত প্রবেশ করলেন নাইম এবং এসেই অর্জন করে নিলেন ৪৯৮ পয়েন্ট।
উল্লেখ্য,নতুন র‌্যাংকিংয়ে সাকিবের জায়গা দখল করেছেন অস্ট্রেলিয়ান তারকা ক্রিকেটার গ্ল্যান ম্যাক্সওয়েল।
অবশ্য সাকিব দুই নম্বর পজিশনে থাকা অবস্থায় ৩৯০ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই ছিলেন ম্যাক্সওয়েল। বর্তমানে ৩৩৩ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় পজিশনে রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ান তারকা ক্রিকেটার ম্যাক্সওয়েল।
টি-টোয়েন্টিতে অলরাউন্ডার র‌্যাংকিংয়ে ৩৩৯ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষ স্থান দখল করেছেন আফগান তারকা মোহাম্মদ নবী। নবী শীর্ষ স্থান দখল করলেও ১০০ জনের তালিকার কোথাও নেই সাকিবের নাম।
টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ের এই অদ্ভুত তালিকা দেখে অবাক সাকিবভক্তরা।
তবে টি-টোয়েন্টি তালিকা থেকে সাকিবের নাম মুছে ফেললেও টেস্ট আর ওয়ানডে তালিকায় রয়েছেন সাকিব।
জুয়াড়িদের কাছ থেকে একাধিকবার ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব পেয়েও তা আইসিসি বা বিসিবিকে না জানানোর অভিযোগে ২০১৯ সালের ২৯ অক্টোবর দু’বছরের জন্যে আইসিসি থেকে নিষিদ্ধ করা হয়। সাকিব পরবর্তীতে ভুল স্বীকার করায় তা কমিয়ে ১ বছর করা হয়।

News Page Below Ad

আরো পড়ুন

Error: No articles to display

এবার র‌্যাংকিং থেকে সাকিবের নাম মুছে দিল আইসিসি
Logo
Print

খেলাধূলা Hits: 847

 

সাকিব আল হাসান ২৮ অক্টোবর ২০১৯ পর্যন্ত বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের টেস্ট ও টি২০ আন্তর্জাতিক সংস্করণে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন। তাকে বাংলাদেশের হয়ে খেলা সর্বশ্রেষ্ঠ ক্রিকেটার হিসেবে বিবেচিত সাকিবকে বিশ্বের অন্যতম সেরা অল-রাউন্ডার বলে গণ্য করা হয়। ১০ বছর ধরে শীর্ষ অল-রাউন্ডারের রেকর্ডের অধিকারী সাকিব এখনো একদিনের আন্তর্জাতিক ও টেস্ট ফরম্যাটে সর্বোচ্চ র‍্যাংকিং ধরে রেখেছেন।ফিক্সিং করেননি। কিন্তু জুয়াড়ির দেয়া প্রস্তাবের কথা আইসিসিকে না জানানোর অপরাধে নিষিদ্ধ সাকিব আল হাসান। এক বছরের নিষেধাজ্ঞা শেষে আবার ক্রিকেটে ফিরে আসতে পারবেন তিনি। এই এক বছর সময়ে ক্রিকেটীয় কোনো কর্মকাণ্ডেই জড়াতে পারবেন না সাকিব।একটি ছোট্ট ভুলের জন্য অনেক বড় মূল্য চুকাতে হচ্ছে সাকিবকে।
সাকিবের ওপর এই নিষেধাজ্ঞার প্রভাব পড়েছে আইসিসি র‍্যাংকিংয়েও। বাংলাদেশ-ভারত সিরিজ শেষে আইসিসি কর্তৃক প্রকাশিত টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে দেখা যাচ্ছে, কোথাও সাকিব আল হাসানের নাম রাখেনি ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display

এবারের আগে প্রকাশি টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে সাকিব আল হাসান ছিলেন দ্বিতীয় স্থানে। তার পয়েন্ট ছিল ৩৫৫। বোলিংয়ে তিনি ছিলেন ৯ নম্বর অবস্থানে এবং ব্যাটিংয়ে ছিলেন ৩২ নম্বর স্থানে।
কিন্তু ভারত-বাংলাদেশ, নিউজিল্যান্ড-ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তান সিরিজ শেষে প্রকাশি টি-টোয়েন্টি র‍্যাংকিংয়ে দেখা যাচ্ছে এই ফরম্যাটের তিন বিভাগের কোথাও সাকিবের নাম নেই। অলরাউন্ডার র‍্যাংকিংয়ে ৩৩৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে উঠে গেছে আফগানিস্তানের অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবি।
সাকিব ভারত সিরিজ খেলতে পারলে শীর্ষেই থাকতে পারতেন, এতে কোনো সন্দেহ নেই। শুধু শীর্ষস্থান কিংবা দ্বিতীয়তে নয়, অলরাউন্ডারদের তালিকায় কোথাও তার নাম নেই। তবে এই তালিকায় চার নম্বরে উঠে এসেছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নাম। তার পয়েন্ট ২২৫।
শুধু অলরাউন্ডারই নয়, বোলার কিংবা ব্যাটসম্যানদের তালিকায়ও নাম নেই সাকিবের। যথারীতি রশিদ খান বোলিংয়ের শীর্ষে এবং বাবর আজম ব্যাটসম্যানদের শীর্ষে রয়েছেন।
বাংলাদেশের নাঈম শেখ ৩৮ নম্বর স্থানে রয়েছেন যৌথভাবে ইংল্যান্ডের জনি বেয়ারেস্টর সঙ্গে। র‍্যাংকিংয়ে প্রথমবারেরমত প্রবেশ করলেন নাইম এবং এসেই অর্জন করে নিলেন ৪৯৮ পয়েন্ট।
উল্লেখ্য,নতুন র‌্যাংকিংয়ে সাকিবের জায়গা দখল করেছেন অস্ট্রেলিয়ান তারকা ক্রিকেটার গ্ল্যান ম্যাক্সওয়েল।
অবশ্য সাকিব দুই নম্বর পজিশনে থাকা অবস্থায় ৩৯০ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষেই ছিলেন ম্যাক্সওয়েল। বর্তমানে ৩৩৩ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় পজিশনে রয়েছেন অস্ট্রেলিয়ান তারকা ক্রিকেটার ম্যাক্সওয়েল।
টি-টোয়েন্টিতে অলরাউন্ডার র‌্যাংকিংয়ে ৩৩৯ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষ স্থান দখল করেছেন আফগান তারকা মোহাম্মদ নবী। নবী শীর্ষ স্থান দখল করলেও ১০০ জনের তালিকার কোথাও নেই সাকিবের নাম।
টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ের এই অদ্ভুত তালিকা দেখে অবাক সাকিবভক্তরা।
তবে টি-টোয়েন্টি তালিকা থেকে সাকিবের নাম মুছে ফেললেও টেস্ট আর ওয়ানডে তালিকায় রয়েছেন সাকিব।
জুয়াড়িদের কাছ থেকে একাধিকবার ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব পেয়েও তা আইসিসি বা বিসিবিকে না জানানোর অভিযোগে ২০১৯ সালের ২৯ অক্টোবর দু’বছরের জন্যে আইসিসি থেকে নিষিদ্ধ করা হয়। সাকিব পরবর্তীতে ভুল স্বীকার করায় তা কমিয়ে ১ বছর করা হয়।
Template Design © Joomla Templates | GavickPro. All rights reserved.