আমার চিকিৎসকরা কোথায়, মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকদের দেখে খালেদা জিয়া এমন প্রশ্ন ছুড়েদেন। উনার প্রশ্নের উত্তরে চিকিৎসকরা জানান, আমরা এসেছি আপনার স্বাস্থ্যের খবর নিতে ও চিকিৎসা দিতে। পরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) মেডিকেল বোর্ডের সদস্যদের কাছে তিনি সমস্যার কথা বলেছেন।
শনিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় গঠিত পাঁচ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড পুরান ঢাকায় নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে গিয়ে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেছে। স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে গঠিত মেডিকেল বোর্ডের প্রধান বিএসএমএমইউ’র মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা.এম এ জলিম সন্ধ্যায় বাংলানিউজকে একথা জানান।
বিকেল ৪টা ৫০ মিনিটে স্বাস্থ্য পরীক্ষা শেষে মেডিকেল বোর্ডের সদস্যরা কারাগার থেকে মাইক্রোযোগে তারা বেরিয়ে যান। এর আগে বিকেল পৌনে ৪টায় তারা কারাগারে প্রবেশ করেন।
মেডিকেল বোর্ডের অন্য সদস্যরা হলেন-কার্ডিওলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. হারিসুল হক, অর্থোপেডিক বিভাগের অধ্যাপক ডা. আবু জাফর বিরু, চক্ষু বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. তারিক রেজা আলী ও ফিজিক্যাল মেডিসিন সহযোগী অধ্যাপক ডা. বদরুন্নেসা।
অধ্যাপক ডা.এম এ জলিম বাংলানিউজকে আরও জানান, খালেদা জিয়া প্রথমে আমাদের দেখে উনার চিকিৎসকরা কই-বলে জানতে চান। পরে আমি বললাম, আমরা এসেছি, আপনার স্বাস্থ্যের খোঁজ নিতে ও চিকিৎসা দিতে। পরে তিনি আমাদের কাছে উনার সমস্যর কথা বলেন।
অধ্যাপক এম এ জলিল বলেন, উনার হাতে-পায়ে সমস্যা আছে। আগে থেকেই এসব সমস্যার কারণে চিকিৎসকদের পরামর্শে তিনি অনেক ওষুধ খাচ্ছেন। সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) খালেদা জিয়ার সমস্যাগুলো নিয়ে পাঁচ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড আমরা একসঙ্গে বসবো। তার পরে জেল কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার করণীয় কী, কী।
বিএসএমএমইউ’র পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুল্লাহ আল হারুন জানান, আশা করি সোমবার দুপুরের আগে কারা কর্তৃপক্ষকে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার করণীয় বিষয়ে একটি ব্যবস্থাপত্র দেবে মেডিকেল বোর্ড।
এদিকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সহকারী সার্জন ডা. মাহমুদুল হাসান সাংবাদিকদের বলেন, চিকিৎসক বোর্ডের সদস্যরা উনার শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছেন। সোমবার বোর্ড সদস্যরা অফিসিয়ালি আমাদের কাছে রিপোর্ট দেবেন।
কি সমস্যা ছিল জানতে চাইলে তিনি বলেন, উনার আগের যে সমস্যাগুলো ছিল সেসব সমস্যা যেমন আর্থাইটিস, হাঁটুতে ব্যথাও রয়েছে।
বাইরের দেশে নেওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে সহকারী সার্জন বলেন, এ বিষয়ে বোর্ডের মতামত ছাড়া বলা যাবে না।
গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের ৫ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। এরপর থেকেই পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন তিনি।
উৎসঃ বাংলানিউজ