করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় বাংলাদেশের সরকার সারা দেশ লকডাউন ঘোষনা করেছে। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার কথা বলেছে সরকার। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য দেশে সেনাবাহিনী মোতায়ন করছে সরকার। এমনকি মসজিদে নামাজ পড়ায় নিষেজ্ঞা জারী করেছে। এরই মধ্যে আল্লাহুর ইবাদাতের লক্ষে গাজীপুরের মেয়র মসজিদ খুলে দেয়ার ঘোষনা দেন। কিন্তু মসজিদ খোলার বিষয়ে মেয়রের ঘোষণা প্রত্যাহার না হলে কড়া ব্যবস্থা নিবেন এমনটা বলেন ধর্মমন্ত্রী।

আরো পড়ুন

Error: No articles to display



সরকারি নির্দেশনার বিরুদ্ধে গিয়ে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম মহানগরে মুসল্লিদের জন্য মসজিদ খুলে দেয়ার ঘোষণা দেয়ায় ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আবদুল্লাহ বলেছেন, এই ঘোষণা প্রত্যাহার করা না হলে কড়া ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বুধবার (২৯ এপ্রিল) এ কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী। এর আগে মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) দুপুরে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বোর্ডবাজার আঞ্চলিক অফিস থেকে এক ভিডিও বার্তায় মেয়র মুসল্লিদের জন্য মসজিদ খুলে দেয়ার ঘোষণা দেন।

এ বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, তার (মেয়রের) এমন ঘোষণাকে আমরা চরম বিরোধী হিসেবে দেখছি। অত্যন্ত কঠিনভাবে প্রতিবাদ জানিয়েছি আমরা। তাকে বার্তা দেয়া হয়েছে, অতি অল্প সময়ের মধ্যে ওই ঘোষণা প্রত্যাহার করে সরকার যেভাবে চায় সেভাবে ঘোষণা দিতে। মনে হয় সেটা তিনি দিচ্ছেন।

প্রতিমন্ত্রী জানান, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলসহ স্থানীয় সব নেতা মেয়রের এই ঘোষণার বিপক্ষে। স্থানীয়ভাবে মাইকিং হচ্ছে, এমন ঘোষণা দেয়ার কোনো এখতিয়ার মেয়রের নেই, এই ঘোষণায় কান দেবেন না।

শেখ আবদুল্লাহ আরও বলেন, মেয়র জাহাঙ্গীর তার ঘোষণা প্রত্যাহারে কিছুটা সময় চেয়েছেন। সেই সময় পর্যন্ত আমরা অপেক্ষা করছি। প্রত্যাহার না করলে কড়া ব্যবস্থা নেয়া হবে। বিষয়টি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত পৌঁছেছে।

এর আগে মেয়র তার ঘোষণায় বলেন, গাজীপুর মহানগরীতে মাত্র কয়েকটি এলাকায় করোনাভাইরাস রয়েছে। বাকিগুলো পার্শ্ববর্তী উপজেলায়। যেহেতু গাজীপুরের গার্মেন্টস কারখানাগুলো খুলে দেয়া হয়েছে তাই এ রমজান মাসে এখন আর মসজিদ অল্পসংখ্যক মুসল্লির জন্য সীমাবদ্ধ রাখার কোনো প্রয়োজন নেই। শুক্রবারের জুমার নামাজ ও রমজানের তারাবির নামাজে মুসল্লিরা অংশ নিতে পারবেন। এতে সিটি কর্পোরেশনের কোনো বাধা থাকবে না।

করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে সরকার মসজিদে ওয়াক্ত, জুমা ও তারাবিহ নামাজ আদায়ে উপস্থিতি সীমিত করেছে। এর বিরুদ্ধে গিয়ে মেয়রের এমন ঘোষণায় বিভিন্ন পরিসরে আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে।


প্রসঙ্গত, করোনা ভাইরাস বর্তমান সময়ে বহুল আলোচিত একটি ভাইরাস। এটি এক প্রকার সংক্রমক অর্থাৎ ছোঁয়াচে ভাইরাস। করোনার উপসর্গ নিয়ে এদেশে প্রতিদিন মারা যাচ্ছে অসংখ্য মানুষ। ইতিমধ্যে বাংলাদেশে এ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৭,১০৩ জন। এ মহামারী করোনার ছোঁবলে প্রাণ হারিয়েছে ১৬৩ জন।

News Page Below Ad

আরো পড়ুন

Error: No articles to display