তেরটি রাজ্য এবং তিনটি ঐক্যবদ্ধ প্রদেশ নিয়ে গঠিত দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার একটি অত্যন্ত সমৃদ্ধিশালী দেশ মালয়েশিয়া। এ দেশের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের, বিশেষ করে মালয়েশিয়ার উৎপাদন ও নির্মান শিল্পে বাঙ্গালীদের ভূমিকা খোদ মালয়েশিয়ার সরকার ও স্বীকার করে। পাশাপাশি এ দেশের সাথে বাংলাদেশীদের রয়েছে অনেক আত্মীয়তার সম্পর্ক।সাতসাগর পাড়ি দিয়ে মালয়েশিয়ায় এসে প্রেম। প্রেম থেকে বিয়ের পিঁড়িতে বসলেন, বাংলাদেশের ছেলে আর মালয়েশিয়ার মেয়ে।
শতশত বাঙ্গালী মালয়েশিয়ায় এসে তাদের ব্যবহার আচার আচরনে মুগ্ধ হয়ে মালয় মেয়েরা করে নিচ্ছেন তাদের জীবন সংঙ্গীনি। তবে এখন তার আর সহজতর নয়, যত সময় যাচ্ছে তথ কঠিন হচ্ছে। কিন্তু সেই কটিন সর্তকে মেনে নিয়ে উভয়ের যৌথ সম্মতিতে আজ বাংলাদেশী হিসেবে বিয়ের পিড়িতে নিজকে আসীন করলেন বৃহত্তর সিলেটের সুনামগন্জ জেলার ছাতক উপজেলার আবদুল হামিদ জামিল, তার পিতা মুফতি মাওলানা মনোয়ার আলী, মাতা, মোছাং হামিদা খাতুন (বিলকিস)। গ্রাম: মুনিরগাতি; পোস্ট অফিস: খুরমা বাজার; থানা: ছাতক; জেলা: সুনামগঞ্জ।
অপরদিকে কনে স্মৃতি নুর আতিকা বিনতে বাহারউদ্দিন, মাতা: রসলিনা বিনতে রাজিন; পিতা: বাহারউদ্দিন; গ্রাম: বারেক ভুনতা পেরাক।
রবিবার উৎসবমুখর পরিবেশে বিয়ে সম্পন্ন করেছেন সিলেটের আব্দুল হামিদ জামিল ও আতিকা, মালয়েশিয়াস্ত কুয়ালালামপুরের চেরাস একটি কনভেনশন হলে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে জীবন সঙ্গীকে আপন করে নিলেন জামিল জামিলের সঙ্গে এখন থেকে চার বছর আগে ঘটনা চক্রে পরিচয় হয় মালয়েশিয়ার মেয়ে আতিকার।
উক্ত অনুষ্ঠান উপলক্ষে কমিউনিটি নেতাদের মধ্যে শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেন জালালাবাদ এসোসিয়েশন মালয়েশিয়ার সিনিয়র সহ-সভাপতি সোনাহর খান রশিদ,সহ-সভাপতি মহসিনুল কুদ্দুস, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ এনামুল হক, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংঙ্গীত পরিবেশন করেন সিলেট ডায়নামিক ফেডারেশন মালয়েশিয়ার সংস্কৃতি বিভাগের অন্যতম সদস্য জালাল উদ্দিন শাহীন ও শাহেদ আহমদ এর নেতৃত্বে সাংস্কৃতিক শিল্পী গোষ্ঠী।
প্রথম দেখাতেই তাকে ভালো লাগে জামিলের, সেই থেকেই চলছে তাদের বন্ধুত্ব। আজ তাদের বিবাহের মধ্য দিয়ে যুগল জীবনে পদার্পণ করলেন সেই তরুন তরুনী।
উল্লেখ্য,মালয়েশিয়ার বর্তমান রাজা পঞ্চম ডাঃ মাহাথির মোহাম্মদ মালয়েশিয়ার বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও আধুনিক মালয়েশিয়ার স্থপতি।তিনি এশিয়ার সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ধরে গণতান্ত্রিক ভাবে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। ২০০৩ সালের ৩০শে অক্টোবর তিনি স্বেচ্ছায় প্রধানমন্ত্রীর পদ ছেড়ে দেন। অবসর গ্রহণের দীর্ঘ পনের বছর পর ৯২ বছর বয়েসে প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের ব্যাপক দুর্নীতি সংশ্লিষ্টতার কারণে মাহাথির মোহাম্মদ আবারও আসেন রাজনীতিতে। ২০১৮ সালের ৯ মে অনুষ্ঠেয় সাধারণ নির্বাচনে জয়ের পরদিন ১০ মে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন তিনি।